পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ষোড়শ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৯২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


નર রবীন্দ্র-রচনাবলী তার পর থেকে, যা আমার সৌভাগ্য অভাবনীয় তাই ঘটে গেল— বন্ধুরূপে পেলেম তোমাকে । কাছে পেয়ে কোনোদিন তোমাকে করি নি থাটে— ছোটে বড়ো নানা ক্রটি সেও আমি হেসে ভালোবেসে তোমার মহত্বে সবই মিলিয়ে নিয়েছি । এ ধৈর্য, এ পূর্ণদৃষ্টি, এও যে তোমারি কাছে শেখা ৷ দোষে ভরা অসামান্ত প্রাণ, সে চরিত্র-রচনায় সব চেয়ে ওস্তাদি তোমার সে তো অামি জানি । তার পরে কতবার অনুরোধ করেছ কেবলই, বলেছিলে, লেখে, লেখে, গল্প লেখো । লেখকের মঞ্চে ছিল পিঠ-উচু তোমারি চৌকিটা । আত্ম-অবিশ্বাসে শুধু আটকে পড়েছ - পড়ুয়ার নীচের বেঞ্চিতে ” শেষকালে বহু ইতস্তত ক’রে লেখা করলেম শুরু । বিষয়টা ঘটেছিল অপমারি আমলে পানতিঘাটায় । আসামি পোলিটিকাল, সাতমাস পলাতক । মাকে দেখে যাবে বলে একদিন রাত্রে এসেছিল প্রাণ হাতে ক’রে । খুড়ে গেল পুলিশে খবর দিতে । কিছুদিন নিল সে অণপ্রয় জেলের্নীর ঘরে- ;