পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (সপ্তম খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১১৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


2) o 8 রবীন্দ্র-রচনাবলী হে মাটি, হে স্নেহময়ী, অয়ি মৌনমূক, অয়ি স্থির, অয়ি ধ্রুব, অয়ি পুরাতন, সর্ব-উপন্দ্রবসহ আনন্দভবন শু্যামলকোমলা, যেথা যে কেহই থাকে অদৃশু দু বাহু মেলি টানিছ তাহাকে অহরহ, অয়ি মুগ্ধে, কী বিপুল টানে দিগন্তবিস্তৃত তব শাস্ত বক্ষ-পানে ! চঞ্চল বালক অগসি প্রতি ক্ষণে ক্ষণে অধীর উৎসুক কণ্ঠে শুধায় ব্রাহ্মণে, ঠাকুর, কখন আজি আসিবে জোয়ার ? সহসা স্তিমিত জলে আবেগসঞ্চার দুই কুল চেতাইল আশার সংবাদে । ফিরিল তরীর মুখ, মৃদু আর্তনাদে কাছিতে পড়িল টান, কলশব্দগীতে সিন্ধুর বিজয়রথ পশিল নদীতে— আসিল জোয়ার । মাঝি দেবতারে স্মরি ত্বরিত উত্তর-মুখে খুলে দিল তরী। রাখাল শুধায় আসি ব্রাহ্মণের কাছে, ‘দেশে পহুছিতে আর কত দিন আছে ? সূর্য অস্ত না যাইতে, ক্রোশ দুই ছেড়ে উত্তর-বায়ুর বেগ ক্রমে ওঠে বেড়ে । রূপনারানের মুখে পড়ি বালুচর সংকীর্ণ নদীর পথে বাধিল সমর জোয়ারের স্রোতে আর উত্তরসমীরে উত্তাল উদাম । ‘তরণী ভিড়াও তীরে’ উচ্চকণ্ঠে বারম্বার কহে যাত্রীদল । কোথা তীর ? চারি দিকে ক্ষিপ্তেশষ্মত্ত জল আপনার রুদ্র নৃত্যে দেয় করতালি