পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (সপ্তম খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৪১৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


é ०९ : রবীন্দ্র-রচনাবলী সন্ন্যাসী । ঠাকুর্দী, তুমি আমার শিশু বন্ধগুলিকে নিয়ে ততক্ষণ আসল জমিয়ে রাখে, আমি বেশি বিলম্ব করব না। ঠাকুরদাদা। রাজার উৎপাতই ঘটুক আর অরাজকতাই হোক, আমি প্রভুর চরণ ছাড়ছি নে । * * * [ প্রস্থান লক্ষেশ্বরের প্রবেশ লক্ষেশ্বর। ঠাকুর, তুমিই অপূর্বানন্দ ! তবে তো বড়ে অপরাধ হয়ে গেছে ! আমাকে মাপ করতে হবে । * সন্ন্যাসী। তুমি আমাকে ভণ্ড তপস্বী বলেছ এই যদি তোমার অপরাধ হয় আমি তোমাকে মাপ করলেম । , f লক্ষেশ্বর। বাবাঠাকুর, শুধু মাপ করতে তো সকলেই পারে, সে ফাকিতে আমার কী হবে । আমাকে একটা-কিছু ভালোরকম বর দিতে হচ্ছে। যখন দেখা পেয়েছি তখন শুধু-হাতে ফিরছি নে । সন্ন্যাসী । কী বর চাই ? লক্ষেশ্বর। লোকে যতটা মনে করে ততটা নয়, তবে কিনা আমার অল্পস্বল্প কিছু জমেছে— সে অতি যৎসামান্ত— তাতে আমার মনের আকাঙ্ক্ষা তো মিটছে না ! শরৎকাল এসেছে, আর ঘরে বসে থাকতে পারছি নে ; এখন বাণিজ্যে বেরোতে হবে। কোথায় গেলে সুবিধা হতে পারে আমাকে সেই সন্ধানটি বলে দিতে হবে ; আমাকে আর যেন ঘুরে বেড়াতে না হয় । সন্ন্যাসী । আমিও তো সেই সন্ধানেই আছি । লক্ষেশ্বর । বল কী ঠাকুর ! সন্ন্যাসী । আমি সত্যই বলছি । লক্ষেশ্বর । ওঃ, তবে সেই কথাটাই বলে । বাবা, তোমরা আমাদের চেয়েও সেয়ান । সন্ন্যাসী । তার সন্দেহ আছে । wi. লক্ষেশ্বর । ( কাছে ঘেঁষিয়া বলিয়া মৃদুস্বরে ) সন্ধান কিছু পেয়েছ ? সন্ন্যাসী । কিছু পেয়েছি বৈকি। নইলে এমন করে ঘুরে বেড়াৰ কেন ? : লক্ষেশ্বর। (সন্ন্যাসীর পা চাপিয়া ধরিয়া ) বাবাঠাকুর, আর-একটু খোলসা করে বলে। তোমার পা ছুয়ে বলছি আমিও তোমাকে একেবারে ফাকি দেব না। কী খুজিছ বলে তো, আমি কাউকে বলব না। *ستم {