পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (সপ্তম খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৪৩৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


8:v রবীন্দ্র-রচনাবলী রাজা। আরে চুপ, চুপ! তুমি সর্বনাশ করবে দেখছি! তার প্রতি তোমার মনের ভাব যাই থাক সে তুমি মনেই রেখে দাও। সন্ন্যাসী। তোমার সঙ্গে পূর্বেও তো সে বিষয়ে কিছু আলোচনা হয়ে গেছে। , রাজা । কী মুশকিলেই পড়লেম ! সে-সব কথা কেন ঠাকুর । সে এখন থাকনা— ওহে লক্ষেশ্বর, তুমি এখানে বসে বসে কী শুনছ! এখান থেকে যাও না । , লক্ষেশ্বর। মহারাজ, যাই এমন আমার সাধ্য কী আছে ? একেবারে পাথর দিয়ে। চেপে রেখেছে। যমে না নড়ালে আমার আর নড়াচড় নেই। নইলে মহারাজের সামনে আমি যে ইচ্ছামুখে বসে থাকি এমন আমার স্বভাবই নয়। বিজয়াদিত্যের অমাত্যগণের প্রবেশ মন্ত্রী ৷ জয় হোক মহারাজাধিরাজচক্রবর্তী বিজয়াদিত্য ! [ ভূমিষ্ঠ হইয়া প্রণাম রাজা । আরে, করেন কী ! করেন কী ! আমাকে পরিহাস করছেন নাকি ? আমি বিজয়াদিত্য নই। আমি তার চরণাশ্রিত সামন্ত সোমপাল । মন্ত্রী। মহারাজ, সময় তো অতীত হয়েছে, এক্ষণে রাজধানীতে ফিরে চলুন। সন্ন্যাসী । ঠাকুর্দা, পূর্বেই তো বলেছিলেম পাঠশালা ছেড়ে পালিয়েছি, কিন্তু গুরুমশায় পিছন পিছন তাড়া করেছেন । 疊 ঠাকুরদাদা। প্রভু, এ কী কাও ! আমি তো স্বপ্ন দেখছি নে ? সন্ন্যাসী স্বপ্ন তুমিই দেখছ কি এরাই দেখছেন তা নিশ্চয় করে কে বলবে? ঠাকুরদাদা। তবে কি—- সন্ন্যাসী । ই, এরা কয়জনে আমাকে বিজয়াদিত্য ব'লেই তো জানেন । ঠাকুরদাদা। প্রভু, আমিই তো তবে জিতেছি। এই কয় দণ্ডে আমি তোমার যে পরিচয়টি পেয়েছি তা এরা পর্যস্ত পান নি। কিন্তু বড়ো সংকটে ফেললে তো ঠাকুর ! লক্ষেশ্বর । আমিও বড়ো সংকটে পড়েছি মহারাজ ! আমি সম্রাটের হাত থেকে বঁচিবার জন্যে সন্ন্যাসীর হাতে ধরা দিয়েছি, এখন আমি যে কার হাতে আছি সেট ভেবেই পাচ্ছি নে । | রাজা। মহারাজ, দাসকে কি পরীক্ষা করতে বেরিয়েছিলেন ? সন্ন্যাসী । না সোমপাল, আমি নিজের পরীক্ষাতেই বেরিয়েছিলেম । রাজা । ( জোড়হন্তে ) এই অপরাধীর প্রতি মহারাজের কী বিধান ? সন্ন্যাসী । বিশেষ কিছুই না । তোমার কাছে যে-কয়টা বিষয়ে প্রতিশ্রুত আছি সে আমি সেরে দিয়ে যাব ।