পাতা:রাজমালা - ভূপেন্দ্রচন্দ্র চক্রবর্ত্তী.pdf/২৭৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।
রাজমালা
প্রতিভাবান্ বীরচন্দ্র
২৪৩

হইলে তিনি বঙ্গীয় কবি সমাজে উচ্চ আসন পাইতেন সন্দেহ নাই।

 “মহারাজ উর্দ্দূ ভাষায় মাতৃভাষার ন্যায় আলাপ করিতে পারেন এবং সঙ্গীত শাস্ত্রে অসাধারণ পণ্ডিত। তিনি পানাদি দোষবর্জ্জিত, বুদ্ধিমান ও অত্যন্ত বাকপটু। তাঁহার বাক্যন্যাসশক্তি এইরূপ প্রবল যে তৎপ্রতি ভীষণ বিদ্বেষভাবাপন্ন কোন ব্যক্তি ক্ষণকাল তাঁহার সহিত আলাপ করিলে, সেই ভাব পরিত্যাগ না করিয়া থাকিতে পারেন না।”[১]

 শাস্ত্র ও সৎসাহিত্য প্রচারে তিনি প্রভূত অর্থ ব্যয় করিয়া বাঙ্গালা দেশের বহু উপকার সাধন করিয়া গিয়াছেন। শ্রীমদ্ভাগবত গ্রন্থের একখানি রাজসিক সংস্করণ করিতে ইচ্ছুক হইয়া তিনি পণ্ডিত রামনারায়ণ বিদ্যারত্নকে রাজধানীতে আনাইয়া ছিলেন কিন্তু গঙ্গাস্নান করিতে না পারিয়া এখানে থাকিতে অসম্মত হওয়ায় বিদ্যারত্ন দ্বারা বহরমপুরে থাকিয়াই উক্ত পুস্তক সম্পাদনের ব্যবস্থা করেন এবং তজ্জন্য প্রেস ক্রয় করা হইয়াছিল এরূপ শুনিয়াছি। ঐ পুস্তক মুদ্রণে প্রায় অর্দ্ধ লক্ষ ব্যয় হইয়া থাকিবে। ভাগবতের এইরূপ বহু টীকাযুক্ত শোভন সংস্করণ অতি অল্পই দেখিতে পাওয়া যায়। ঐ প্রেসে বৈষ্ণবস্মৃতি শ্রীহরিভক্তিবিলাস মুদ্রিত হয়। ব্রহ্ম সূত্রের গোবিন্দভাষ্য সম্বলিত একখানি সংস্করণ প্রচারের সাহায্য