পাতা:রাজমোহনের স্ত্রী.djvu/৪৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


8 o রাজমোহনের স্ত্রী করিতে হইবে ; তাহাকেই যাইতে হইবে । ভাবিতেই, ভয়ে তাহার সমস্ত অন্তরাত্মা শিহরিরা উঠিল । রাস্তায় সাক্ষাং বিপদ যদিও অনেক, তবু সেগুলিই বড় বিপদ নয়। নিশীথ রাত্রের ভয়সঙ্কল নির্জনতায়, অরণ্যসঙ্কল পথে এক যুবতী নারী সে,—স্বভাবতই সে সব কিছুকেই বিশ্বাস করিত—বনে বনে যে সকল অলৌকিক জীবের বিহারভূমি তাহাদের সম্বন্ধে শৈশবে অনেক গল্প সে শুনিয়াছে, তাহার কল্পনাপ্রবণ মনে সেগুলি আরও ভীষণ, আরও ভয়াবহ রূপ পরিয়া বাসা বাধিয়া আছে । তাহা ছাড়া, ভীষণ একদল দস্থ্য নিকটেই কোথায় রহিয়াছে, যদি তাহাদের হাতে পড়ে । ফল কি হইবে কল্পনায় ভাবিয়া লইয়া সে শিহরিয়া উঠিল । যদি এই দস্থ্যদলে তাহার স্বামী থাকে । মাতঙ্গিনী আবার শিহরিল। কিন্তু মাতঙ্গিনীর হৃদয়ে সাহস ছিল, তাহার ভগিনী ও ভগিনীপতির জন্য জীবন পর্য্যন্ত বিসর্জন দিতে পারে, ইহা সে মনে মনে অনুভব করিল। ভয়াবহ বিপদের কথা তাহার যতই মনে হইতে লাগিত, তাহার হৃদয়ের মহৎ প্রেম ততই যেন বুদ্ধি পাতীয় উদ্বেল হইতে লাগিল, এই প্রেমের বেদীতে সে তাহার ভগ্ন হৃদয়ের দুঃসহ ভারস্বরূপ জীবনকেই উংসর্গ করিতে চাহিল। কিন্তু নারী-হৃদয়ের অন্য এক অনুভূতি বাধার স্বজন করিল। নিশীথ রাত্রে একাকী মাধবের গৃহে সে যাইবে । তাহাকে কে বিশ্বাস করিবে ? মাধব নিজে কি ভাবিবে ? ভ্ৰকুঞ্চিত করিয়া নিশ্চলভাবে দাড়াইয়া সে ভাবিতে লাগিল । কিংকৰ্ত্তব্যবিমূঢ়া মাতঙ্গিনী দীর্ঘনিশ্বাস ফেলিল, ঘরের গুমট গরমে সে পীড়িত হইতেছিল—সাহস করিয়া সে ছোট জানালাটি খুলিয়া ফেলিল । গাছের ছায়া দীর্ঘ হইয়া পড়িয়াছে এবং দূর চক্রবাল-সীমান্তে চাদ ঝুলিয়। পড়িয়াছে। তাহার রশ্মি ক্ষীণ ! ঘণ্টাখানেকের মধ্যে চন্দ্র অন্তহিত হইবে, দস্থ্যদের উন্মাদ চীৎকার শ্রত হইবে । মাতঙ্গিনী ভাবিল, তখন ?