পাতা:রাজমোহনের স্ত্রী.djvu/৪৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রাজমোহনের স্ত্রী SS তাহাদের প্রাণরক্ষার বহু বিলম্ব ঘটিয়া যাইবে । আসন্ন বিপদের শঙ্কা তাহার মনের সকল বিচারবুদ্ধি দূর করিল, তাহার ভালবাসা দশ গুণ হইয়া ফিরিয়া আসিল, মাতঙ্গিনী আর দ্বিধা করিল না । নিজেকে আপাদমস্তক একটা মোটা বিছানার চাদরে আবৃত করিয়৷ মাতঙ্গিনী সন্তপণে দরজা খুলিয়া ঘরের বাহির হইয় রাজমোহন যেমন করিয়া বাহির হইতে দরজা বন্ধ করিয়াছিল ঠিক সেই ভাবে অত্যন্ত সাবধানতার সহিত দরজা বন্ধ করিল। সীমাহীন শূন্যের তলদেশে দণ্ডায়মান হইয়। নীল আকাশের অনন্ত নীরবত এবং দূরে বৃক্ষশ্রেণীর ঘন-সন্নিবিষ্ট শীর্ষদেশের নিঃশব্দতার মধ্যে তাহার হৃদয় দুৰ্ব্বল হইয় পড়িতেছিল, পা যেন চলিতে চাহিতেছিল না। বুকের উপর দুই হাত চাপিয়া সে আর্ত কণ্ঠে উচ্চারণ করিল, “দেবতা, শক্তি দাও ।” তারপর মনের সমস্ত শক্তি একত্র করিয়া সে দ্রুত অথচ নি:শব্দ পদচারণা করিতে শুরু করিল। অরণ্যপথে চলিতে চলিতে তাহার হৃদয় স্পন্দিত হইতে লাগিল । অরণ্যের ভয়াবহ নীরবত ও ছায়াময় অন্ধকার তাহাকে আতঙ্কিত করিল। বনস্পতিসমূহের গ্রস্থিল কাণ্ডগুলি যেন প্রেতমূৰ্ত্তি পরিয়া সেই কুটিল অন্ধকারে তাহার গতি পর্য্যবেক্ষণ করিতেছিল । পত্রাচ্ছাদিত এক-একটি বৃক্ষশাপ৷ অন্ধকার পথে মাথার উপর দিয়া চলিয়া যায়, আর তাহার মনে হয় যেন তাহাদের অন্তরালে এক-একটি দৈত্য লুকাইয় আছে। অন্ধকারাচ্ছন্ন বনস্থলীর এখানে সেখানে যেন এক-একটি প্রেত অথবা দস্থ্য ওত পাতিয়া আছে—তাহাদের প্রজ্জ্বলিত চক্ষু। গল্পে শোনা যে সব ভয়ঙ্কর মূৰ্ত্তি ও পৈশাচিক হাসি গভীর নিশীথে পথিককে আতঙ্কিত করিয়৷ মৃত্যুমুখে ঠেলিয়৷ দেয়, সেই সব মূর্তি ও হাসি যেন তাহার কল্পনায় ভিড় করিয়া আসিল । স্থলিত বৃক্ষপত্রের মুহূ মৰ্ম্মরধ্বনি ; চকিত নৈশ বিহঙ্গের অন্ধকার বৃক্ষশাখার অদৃশ্ব স্থান হইতে স্থানান্তরে সরিয়া বসিবার নিমিত্ত পক্ষবিধুনন শব্দ ; পতিত বৃক্ষপত্রের উপর সরীস্বপের সামান্ত গতিশব্দ । এমন কি