পাতা:রাজমোহনের স্ত্রী.djvu/৫০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


8२ রাজমোহনের স্ত্রী তাহার নিজের পদধ্বনিও তাহার হৃদয়কে ভয়চকিত করিয়া তুলিতেছিল। তথাপি সে বুক বাধিয়া চলিতে লাগিল, মনে মনে সহস্ৰ বার ইষ্টদেবতার নাম স্মরণ করে—কখনও বা অৰ্দ্ধোচ্চারিত মন্ত্র পড়িতে থাকে । দুই উচ্চ ভূমিখণ্ডের মধ্যবৰ্ত্তী সমতল পথের উপরেই অন্ধকার নিবিড়তম ; একদিকে ঘন কাটাগুন্মের বেড়াঘের বৃহৎ আম্রবন, অন্যদিকে একটি পুকুরের উচু পাড়—ছোট ছোট গুল্মে নিবিড়ভাবে আচ্ছাদিত এবং ইহাদিগকে ছাইয়। তিনটি বটগাছের পত্রাচ্ছাদিত বৃহৎ শাখা আন্দোলিত হইতেছে । নিম্নের ছায়াচ্ছন্ন পথ বটগাছের জন্য আরও অন্ধকার দেখাইতেছে । মাতঙ্গিনী সভয়ে চক্ষু ফিরাইল, আম্রবনের মধ্য হইতে একটা তীব্র আলোকরশ্মি আসিতেছিল এবং অশান্ত চাপাকণ্ঠের আওয়াজও যেন শুনিতে পাওয়া যাইতেছিল। সে যাহা ভয় করিতেছিল তাহাই বুঝি শেষ পর্য্যন্ত ঘটিয়া যায় ! এই তো সেই ডাকাতের দল। মাতঙ্গিনী চিত্রাপিতের ন্যায় দাড়াইয়া রহিল—এক পা চলিতে পারিল না । বিপদের উপর বিপদ, পথশায়িত একটি কুকুর নিশীথ রাত্রের পথিকের পদশব্দে জাগরিত হইয়৷ উচ্চৈস্বরে চীংকার শুরু করিল। অমনই আমবাগান হইতে আগত কণ্ঠস্বর স্তব্ধ হইল। এইটুকু বুঝিতে পারিবার মত প্রত্যুৎপন্নমতিত্ব মাতঙ্গিনীর তখনও ছিল যে, দস্থারা কুকুরের ইঙ্গিত অবজ্ঞা করে নাই এবং তাহার ধরা পড়িতে বিলম্ব হইবে না। নূতন বিপদের আশঙ্কায় সে যেন শক্তি ফিরিয়া পাইল । হরিণের মত নিঃশব্দ চঞ্চল চরণে সে পুকুরের অন্ধকার পাড়ের দিকে ধাবমান হইয়া দ্রুত জলের ধারে পৌছিল। পায়ে-চলার পথে যাহারা তাহাকে খুজিবে, পুকুরের খাড়া পাড় তাহাদের দৃষ্টিপথ হইতে তাহাকে আড়াল করিল বটে, কিন্তু দস্থ্যরা যদি যে পাড়ে বটগাছগুলি ছিল সেই পাড়ে আসিয়া তাহার খোজ করে, তাহা হইলে আর রক্ষা নাই । কাছাকাছি ঝোপঝাড়ও ছিল না যে, সে লুকাইয়া বাচিবে । কিন্তু মাতঙ্গিনী তখন সাহস সঞ্চয় করিয়াছে—সে কালবিলম্ব করিল না ।