পাতা:রাজা ও রাণী-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১১৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


5 כי כל বিক্রম । ইল । র জি ও বাণী কি মধুর শান্তি হেথা । চিরন্তন অরণ্য অাবাস, স্থপস্থপ্ত ঘনচ্ছায়া, নিঝরিণী নিবন্তব-ধবনি । শান্তি যে শীতল এত, এমন গম্ভীর, এমন নিস্তব্ধ তবু এমন প্রবল উদার সমুদ্রসম, বহুদিন ভুলে ছিন্তু যেন । মনে হয়, অামাব প্রাণেব অনন্ত অনল দাত, সে-ও যেন হেথা হারাষ্টয়া ডুবে যায়, না থাকে নির্দেশ, এত ছায়া, এত স্থান এত গভীরতা ! এমনি নিভৃত সুখ ছিল আমাদেল, গেল কা’র অপবাধে ? অামাব, কি তা’র ? যাবি হোক—এ জনমে আগব কি পাব না ? যাও তবে একেবারে চলে’ যাও দূরে ! জীবনে থেকে না জেগে তালুতাপরাপে, দেখা যাক যদি এইখানে—-সংসাবের নির্জন নেপথ্য দেশে পাই নব প্রেম, তেমনি অতলস্পর্শ, তেমনি মধুর ! সর্থীর সহিত ইলার প্রবেশ একি অপরূপ মূৰ্ত্তি ! চরিতার্থ আমি ! আসন গ্রহণ কর দেবি ! কেন মৌন, নতশিব, কেন স্নানমুখ, দেহলত কম্পিত কাতর ? কিসেব বেদন তব ? ( নতজামু ) শুনিয়াছি মহারাজ-অধিরাজ তুমি