পাতা:রাধারাণী-বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/৭২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ब्रछनेौ אפו গোবিন্দ বাবু বলিলেন, “হরেকৃষ্ণ তাহার নাম রজনী রাখিয়াছিলেন।" ইছার অল্প দিন পরেই আমি কাশী পরিত্যাগ করিলাম । তৃতীয় পরিচ্ছেদ প্রথমে আমাকে বুঝিতে হইতেছে, আমি কি খুজি । চিত্ত আমার দুঃখময়, এ সংসার আমার পক্ষে অন্ধকার। আজি আমার মৃত্যু হইলে, আমি কাল চাহি না । যদি ফুঃখ নিবারণ করিতে না পরিলাম, তবে পুরুষত্ব কি ? কিন্তু ব্যাধির শান্তি করিতে গেলে আগে ব্যাধির নির্ণয় চাহি । দুঃখ নিবারণের আগে আমার দুঃখ কি, তাহ নিরূপণের আবশ্বক। দুঃখ কি ? অভাব। সকল দুঃখই অভাব। রোগ দুঃখ ; কারণ, রোগ স্বাস্থ্যের অভাব। অভাবমাত্রই দুঃখ নহে, তাহ জানি। রোগের অভাব দুঃখ নহে। অভাবৰিশেষই ছুঃখ । আমার কিসের অভাব ? আমি চাই কি ? মনুষই চায় কি ? ধন ? আমার যথেষ্ট আছে । যশ: ? পৃথিবীতে এমন কেহ নাই, যাহার যশ নাই। যে পাকা জুয়াচোর, তাহারও বুদ্ধি সম্বন্ধে যশ আছে। আমি একজন কশাইয়েরও যশ শুনিয়াছি-মাংস সম্বন্ধে সে কাহাকেও প্রবঞ্চনা করিত না । সে কখন মেঘমাংস বলিয়া কাহাকেও কুকুরমাংস দেয় নাই । যশ সকলেরই আছে। আবার কাহারও যশ সম্পূর্ণ নহে। বেকনের ঘুষখোর অপবাদ– সক্রেতিস অপযশহেতু বধদণ্ডার্হ হইয়াছিলেন। যুধিষ্ঠির ক্রোণবধে মিথ্যাবাদী—অর্জুন বক্রবাহন কর্তৃক পরাভূত। কাইসরকে যে বিথনিয়ার রাণী বলিত, সে কথা অদ্যাপি প্রচলিত ;–সেক্ষপীয়রকে বলটের ভাড় বলিয়াছেন। যশ চাহি না। যশ সাধারণ লোকের মুখে । সাধারণ লোক কোন বিষয়েরই বিচারক নহে—কেন ন, সাধারণ লোক মুখ এবং স্থূলবুদ্ধি। মূখ স্থূলবুদ্ধির কাছে যশস্বী হইয়া আমার কি মুখ হইবে ? আমি যশ চাহি না । মান ? সংসারে এমন লোক কে আছে যে, সে মানিলে সুখী হই । যে দুই চারি জন আছে, তাহাদিগের কাছে আমার মান আছে। অন্তের কাছে মান-অপমান মাত্র । রাজদরবারে মান—সে কেবল দাসত্বের প্রাধান্ত চিহ্ন বলিয়া আমি অগ্রাহ করি । আমি মান চাহি না । মান চাহি কেবল আপনার কাছে।