পাতা:রাসেলাস.djvu/১৪৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রামেজাস । * ö等 হইয়াছি, যে, তাহীতে কৃতকার্য হইতে পারিলে উভয়েই সমান ফলভোগী হইব, কৃতকার্য্য হইতে না পারলে উভযুকেই সমান হতাশ হইতে হইবেক । ভুক্সিমিস্ত আমাদিগের পরস্পর সাহায্য করা ও পরস্পঃ তালুকল থাক বিধেয় । বোধ হয়, দম্পতির দুঃখ মেথিয়? উত্তমরূপে পুৰ্ব্বাপর পর্যালোচনা ন করিয়’ই তুমি প্রকৃতিনিদিষ্ট বিবাহপ্রথার বিরুদ্ধে অগিন মান্ত ব্যক্ত করিয়া পাকিবে। ভূতলে জন্ম গ্রহণ করলেই দুঃখ ভোগ করি:ত হয় বলিশ} ক জীবনকে ঈশ্বরদত্ত কালৰে ন : পরিণয়সম্পাদন দ্বার: প্রজঃস্থটি হুইৰে,কি স্ত্রী পুরু, যেত্ন পরস্পর সমাগম বাতিরেকেই পুথিবী গ্রক্ষাময় হইবেক ১ ” নিকায় উত্তর করিলেন “ পৃথিবী- কিরূপে প্রজা বুদ্ধি হুইবেক সে ভাবনায় অংমার প্রয়োজন কি, ভোমীরই বা সে চিন্তায় অবশ্যক কি ? পৃথিবীর বর্তমান লোকেরা যদি আপন আপন উত্তরাধিকারী ন; কুখিয়া মনৰঙ্গীলা মম্বরণ করে, তাহ হইলে আমি কোন অনিষ্ট দেখিতে পাই না । আমরা এক্ষণে পৃথিবীর ভবন ভাবিতেছি না, আপন আপন মন্ত ৰনাই ভাবিতেছি । ” রাসেলাস কহিলেন “ সমুদায় শ্লোকের পক্ষে যাহ উত্তম, ব্যক্তিবিশেষের পক্ষেও তাহ উৎকৃষ্ট বলিতে হইবেক । বিবাহপ্রথ! যদি সমুদায় লেফের পক্ষে শুম্ভ