পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (অষ্টম সম্ভার).djvu/২৯৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


6: মায়ের মৃত্যুর পর হইতেই হেমের আচার-ব্যবহারের আশ্চৰ্য্য পরিবর্তন দেখা দিল। কাছে থাকিয়াও যেন প্রতিদিন নিজেকে কোন স্বদুর অন্তরালের ভিতর দিয়া ঠেলিয়া যাইতে লাগিল। গুণেন্দ্র চিরদিন সহিষ্ণু ও নিস্তন্ধ প্রকৃতির। এ পরিবর্তন সে প্রথমেই টের পাইল, কিন্তু নিঃশব্দে সহ করিয়া রহিল। অকস্মাৎ ধর্শ্বের মধ্যে হেম কি রস পাইল; সে-ই জানে, সে নাটক, নভেল, কবিতার বই তুলিয় রাখিয়া, রামায়ণ, মহাভারত, গীত ও উপনিষদের বাঙলা অনুবাদের মধ্যে নিজেকে সম্পূর্ণরূপে নিমজ্জিত করিয়া ফেলিল। মায়ের শপথ মনে করিয়া সে থানকাপড় পরিল না বটে এবং কানের দুটি হীরার দুল, চুড়ি, এবং হারও খুলিয়া রাখিল ন। সত্য, কিন্তু বৈধব্যের সমস্ত কঠোরতা অত্যন্ত নিষ্ঠার সহিত পালন করিয়া চলিতে লাগিল । সমস্ত রকমের বাহুল্য বর্জন করিয়া সে একবেলা রণধিয়া থাইত । এইটুকু সময় এবং গৃহিণীর প্রয়োজনীয় কৰ্ম্ম সমাধা করিতে যেটুকু সময় লাগে, সেইটুকু ছাড়া সমস্ত সময়ট সে ধৰ্ম্মৰ্চায় অতিবাহিত করিতে লাগিল। যদি বা সে গুণীর কাছে আসিয়া বসিত, কিন্তু পরক্ষণেই কোন একটা কাজের নাম করিয়া চলিয়া যাইত। সে যে তাহার সঙ্গকে ভয় করিতে শুরু করিয়াছে, এই আকস্মিক ভ্রস্ত পলায়নের দ্বারা তাহ এতই স্বম্পষ্ট হইয়া উঠিত যে, বহুক্ষণের নিমিত্ত গুণী শূন্তদৃষ্টিতে জানালার বাহিরে তাকাইয়া স্তব্ধ হইয়া বসিয়া থাকিত । যত দিন কাটিতে লাগিল, তাহার আচার-বিচারের ছোটখাট কাজগুলা পৰ্য্যস্ত স্বধৃঢ় আকার ধরিয়া উঠিয়া দাড়াইতে লাগিল। যেমন জেলের কর্তৃপক্ষ জেলের মধ্যে বেষ্টনের পরে বেষ্টন তুলিয়া তাহার বড় কয়েদীগুলির পরিসর ছোট করিয়া আনিতে থাকে, হেম যেন ঠিক তেমনি সতর্ক হইয় তাহার হৃদয়বাসী কোন এক গভীর দুষ্কৃতকারীর চলাফেরার পথ সঙ্কীর্ণ করিয়া আনিতে লাগিল । একদিন সে হঠাৎ আসিয়া বলিল, গুণীদ, মস্তর নেব । গুণী মুখের দিকে চাহিয়া থাকিয়া বলিল, কি মন্ত্র, গুরুমন্ত্র ? 淡11 গুণী হাসিয়া বলিল, ভয় নেই ভাই, তোমাকে আত্মরক্ষার জন্য নিত্য নূতন কবচ আঁটতে হবে না । - হেম বোধ করি কথাটা বুঝিতে পারিল না, কিছুক্ষণ চাহিয়া থাকিয়া বলিল, গুরুমন্ত্রের দরকার নেই ? खनै बलिण, चारझ, क्रूि cन वब्रन ५थtनt cठांशद्र दैनि । ७1 शफ़, ८क তোমাদের গুরু, সে ত আমি জানিনে । ՀԵՑ