পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (একাদশ সম্ভার).djvu/৩০৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


अंग्रं९-जांश्छिा-नं★♚ह দিয়ে দিয়েচে ? এমন কোন ওষুধ নেই, যাতে আমি বঁচি ? আমি গেলে তোমার হয়ত কত কষ্টই হবে । একফোটা চোখের জল উপেন্দ্র কোনমতেই সামলাইতে পারিল না—টপ করিয়া স্বরবালার কপালের উপর ঝরিয়া পড়িল । সমস্ত হৃদয়টা তাহার মথিত করিয়া নালিশ ধ্বনিয়া উঠিল, ভগবান! স্বামীর বুকে এতবড় ভালবাসাই শুধু দিলে, কিন্তু এতটুকু শক্তি দিলে না যে, স্নেহাস্পদটিকে সে একটা দিনও বেশী ধরিয়া রাখে । সুরবাল শীর্ণ হাতখানি তুলিয়া স্বামীর চোখ মুছইয়া দিয়া বলিল, তোমার কান্ন৷ আমি সইতে পারিনে—আমার আর একটি কথা রাখবে ? 'উপেন্দ্র ঘাড় নাড়িয়া বলিল, রাখব। স্বরবাল কহিল, তা হলে আমার ছোটবোন শচীর সঙ্গে ছোট ঠাকুরপোর বিয়ে দিয়ে, আমি অনেক দিন তাকে দেখিনি, দু-চারদিনে পড়ার এমন কি ক্ষতি হবে,— একবার কলকাতা থেকে আসতে টেলিগ্রাফ করে দাও না । উপেন্দ্রর বুকে আর একবার শেল বিধিল । দিবাকরকে স্বরবালা যে কত তালবাসিত তাহ সে জানিত । তথাপি তাহার শেষ ইচ্ছা পূর্ণ করিবার কোন উপায় নাই । দিবাকরের চরম কীৰ্ত্তি চিরদিনই সে পত্নীর কাছে গোপন রাখিয়াছিল, আজও তাহা প্রকাশ করিল না । টেলিগ্রাফ করিবার অনুরোধটা এড়াইয়া গিয়া কহিল, কিন্তু তার সঙ্গে শচীর বিয়ে দিতে প্রথমে ত তোমার মত ছিল না পশু ! শুধু আমার মতেই শেষে মত দিয়েছিলে। এখন আমার নিজের মত বদলে গেছে, শচীর জন্যে ঢের ভাল সম্বন্ধ আমি ঠিক করে দেব, কিন্তু এ-বিয়েতে কাজ নেই স্বরো । স্বরবালা বলিল, না, সে হবে না । ছোটঠাকুরপোর সঙ্গেই শচীর বিয়ে দিয়ো । উপেন্দ্র একটু আশ্চৰ্য্য হইয়। বলিল, কেন বল ত ? স্বরবাল কহিল, তার মুখ দেখে তুমি কোনদিন আর আমাদের পর হতে পারবে না। তা ছাড়া, সে বাড়িতে থাকলে তোমাকেও দেখতে পারবে । উপেন্দ্র অন্তমনস্কের মত কহিল, আচ্ছা, যদি অসম্ভব না হয় দেব । ইহার তিনদিন পরে খবর পাইখা উপেন্দ্রর নিষেধসত্ত্বেও মহেশ্বরী আসিয়া পড়িলেন । স্বরবালা তাহার কোলের উপর মাথা রাখিয়া কহিল, আমি গেলে ওঁর ওপরে একটু দৃষ্টি রেখে দদি। আমি ত জানি, উনি আর কখনো বিয়ে করবেন না, কিন্তু ভারী কষ্ট্র হবে। তোমরা সবাই ওঁকে দেখে, তোমাদের কাছে এই আমার শেষ মিনতি, বলিয়া তাহার চোখ দিয়া জল পড়িতে লাগিল । שקלאי