পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (চতুর্থ সম্ভার).djvu/২৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শ্রীকান্ত কিন্তু খবর সব ভাল ত রতন ? রতন মুখখানা গম্ভীর করিয়া বলিল, তাই ত দেখায় । গুরুদেবের কৃপায় বাড়ির বাইরেট গুলজার, ভেতরে দাসদাসী, বন্ধুবাৰু, নতুন বেীমা এসে ঘর-দোর আলো করেছেন, আর সবার ওপরে স্বয়ং মা আছেন যে বাড়ির গিল্পী-এমন সংসারকে নিন্দে করবে কে ? আমি কিন্তু অনেক কালের চাকর, জাতে নাপ,তে—রত্নাকে অত সহজে ভোলানো যায় না বাবু। তাই ত সেদিন ইস্টশনে চোখের জল সামলাতে পারিনি, প্রার্থনা জানিয়েছিলাম বিদেশে চাকরের অভাব হলে রতনকে একটা খবর পাঠাবেন । জানি, আপনার সেবা করলেও সেই মায়ের সেবাই করা হবে । ধৰ্ম্মে পতিত হবো না । কিছুই বুঝিলাম না, শুধু নীরবে চাহিয়া রহিলাম। সে বলিতে লাগিল, বন্ধুবাবুর বয়সও হ’লো, যা হোক একটু বিদ্যেসিদ্যে শিখে মানুষও হয়েছেন । ভাবছেন বোধহয় কিসের জন্ত আর পরবশে থাকা ? দানপত্রের জোরে মেরে ত সব নিয়েছেন । মোটামুটি যে বেশ কিছু মেরেছেন তা মানি, কিন্তু সে কতক্ষণ বাৰু ? স্পষ্ট এখনও হইল না, কিন্তু একটা আবছায়। চোখের সম্মুখে ভাসিয়া আসিল । সে পুনশ্চ বলিতে লাগিল, স্বচক্ষেই ত দেখেচেন মাসে অন্তত ছ’বার করে আমার চাকরি যায়। অবস্থা মন্দ নয়, রাগ করে চলে গেলেও পারি, কিন্তু যাইনে কেন ? পারিনে । এটুকু জানি, যার দয়ায় হয়েচে তার একটা নিশ্বাসেই আশ্বিনের মেঘের মত সমস্ত উবে যাবে, চোখের পাতা ফেলবার সময় দেবে না। ও তো মায়ের রাগ নয়, ও আমার দেবতার আশীৰ্ব্বাদ । এখানে পাঠককে একটু স্মরণ করাইয়া দেওয়া আবশ্বক যে, রতন ছেলেবেলায় কিছুকাল প্রাইমারী স্কুলে বিদ্যালাভ করিয়াছিল । একটু থামিয়া কহিল, মায়ের বারণ তাই কখনো বলিনে। ঘরে যা-কিছু ছিল গুড়োর ঠকিয়ে নিলে, একধর যজমান পৰ্যন্ত দিলে না। ছোট দুটি ছেলেমেয়ে আর তাদের মাকে ফেলে পেটের দায়ে একদিন গা ছেড়ে বার হলাম, কিন্তু পূৰ্ব্বজন্মের তপিস্তে ছিল, আমার এই মায়ের ঘরেই চাকরি জুটে গেল। সমস্ত দুঃখই শুনলেন, কিন্তু কিছুই তিনি বললেন না। বছরখানেক পরে একদিন নিবেদন জানালাম, মা, ছেলেমেয়ে স্থটোকে দেখতে একবার সাধ হয়, যদি দিন-কয়েকের ছুটি দেন। হেসে বললেন, আবার আসবি ত ? যাবার দিনে হাতে একটা পুটুলি গুজে দিয়ে বললেন, রতন, খুঞ্চোয়ের সঙ্গে ঝগড়াঝাটি করিসূনে বাবা, যা তোর গেছে এই দিয়ে ফিরিয়ে মি গে যা। খুলে দেখি পাচশো টাকা। প্রথমে নিজের চোখ দুটোকেই বিশ্বাস হ’লে না, ভৱ হ’লো বুৰি-বা জেগে জেগেই স্বপন দেখচি। আমার সেই মাৰেই Y eس} s