পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (ত্রয়োদশ সম্ভার).djvu/৬০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎ-সাহিত্য-সংগ্ৰহ বাবুটির স্বাস্থ্য গেছে, কিন্তু সখ ষোল আনাই বজায় আছে তা স্বীকার করতে হবে। কি বল অপূৰ্ব্ব ? এতক্ষণে অপূৰ্ব্ব তাহার পরিচ্ছদের প্রতি দৃষ্টিপাত করিয়া মুখ ফিরাইয়া হাসি গোপন করিল। তাহার মাথার সম্মুখদিকে বড় বড় চুল, কিন্তু ঘাড় ও কানের দিকে নাই বলিলেই চলে,—এমনি ছোট করিয়া ছাটা । মাথায় চেরা সিথি-- অপৰ্য্যাপ্ত তৈলনিষিক্ত কঠিন রুগ্ন কেশ হইতে নিদারুণ নেবুর তেলের গন্ধে ঘর ভরিয়া উঠিয়াছে। গায়ে জাপানী সিস্কের রামধন্থ-রঙের চুড়িদার পাঞ্জাবি, তাহার বুকপকেট হইতে বাঘ-জাক একটা রুমালের কিয়দংশ দেখা যাইতেছে, উত্তরায়ের কোন বালাই নাই। পরণে বিলাতি মিলের কালো মকমল পাড়ের সূক্ষ্ম শাড়ি, পায়ে সবুজ-রঙের ফুল-মোজা হাটুর উপরে লাল ফিতা দিয়া বাধা, বার্নিশ করা পাম্প-শু, তলাটা মজবুত ও টিকসই করতে আগাগোড়া লোহার নাল বাধানে, হাতে একগাছি হরিণের শিঙের হাতল দেওয়া বেতের ছড়ি,-কয়দিনের জাহাজের ধকলে সমস্তই নোংরা হইয়া উঠিয়াছে—ইহার আপাদমস্তক অপূৰ্ব্ব বারবার নিরীক্ষণ করিয়া কহিল, কাকাবাৰু, এ লোকটিকে আপনি কোন কথা জিজ্ঞাসা না করেই ছেড়ে দিন-যাকে খুজছেন সে যে এ নয়, তার আমি জামিন হতে পারি। নিমাইবাবু চুপ করিয়া বহিলেন। অপূৰ্ব্ব কহিল, আর যাই হোক, যাকে খুজচেন র্তার কালচারের কথাটা একবার ভেবে দেখুন। নিমাইবাৰু হাসিয়া ঘাড় নাড়িলেন, কহিলেন, তোমার নাম কি হে ? আঞ্জে, গিরীশ মহাপাত্র। একদম মহাপাত্ৰ ! তুমিও তেলের খনিতেই কাজ করছিলে, না? এখন রেজুনেই থাকবে ? তোমার বাক্স-বিছানা ত খানাতল্লাসী হয়ে গেছে, দেখি তোমার ট্যাক এবং পকেটে কি আছে ? তাহার ট্যাক হইতে একটি টাকা ও গণ্ডা-ছয়েক পয়সা বাহির হইল, পকেট হইতে একটা লোহার কম্পাস, মাপ করিবার কাঠের একটা ফুটকুল, কয়েকটা বিড়ি, একটা দেশলাই ও একটা গাজার কলিকা বাহির হইয়া পড়িল । নিমাইবাবু কছিলেন, তুমি গাজা খাও? লোকটি অসঙ্কোচে জবাব দিল, জাঙ্কে না । তবে এ বন্ধটি পকেটে কেন ? জাজে, পথে কুড়িয়ে পেলাম, যদি কারও কাজে লাগে তাই তুলে রেখেছি। জগদীশবাবু এইসময়ে ঘরে ঢুকিতে নিমাইবাৰু হাসিয়া কহিলেন, দেখ জগদীশ, কিরূপ সদাশয় ব্যক্তি ইনি। যদি কারও কাজে লাগে তাই গাঁজার কলকোট Çe