পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দশম সম্ভার).djvu/১২৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


& জয়লাল মাস্টারকে গোকুল গোপনে আশী টাকা খুব দিয়া আসিয়াছে—কথাট প্রকাশ হওয়া পৰ্যন্ত অনেকেই তাহার নির্বদ্ধিত লক্ষ্য করিয়া কটাক্ষ করিয়াছে। সে বিনোদের জন্য ছট ফট, করিতেছে, অথচ বিনোদ তাহাকে ভ্ৰক্ষেপের দ্বারাও গ্রাহ করে না—এমনধারা একটা আভাসও বাড়িগুদ্ধ সকলের চোখে-মুখে অনুভব করিয়া গোকুল মনে মনে অত্যন্ত সঙ্কুচিত হইয়া উঠিতেছিল। বাড়ির গাড়ি বোধ করি এই লইয়া দশবার চুচুড়া স্টেশন হইতে ফিরিয়া আসিল । গোকুল তাচ্ছিল্যভরে কোচম্যানকে প্রশ্ন করিল, আর কি কলকাতার গাড়ি নেই যে তোরা ফিরে এলি ? যা, যা, তোরা জিরোগে যা । কোচম্যান বিনীতভাবে কহিল, আরো দু’খানা আছে বটে, কিন্তু ঘোড়া দানাপানি পায় নি বলেই চলে আসতে হ’লো। গোকুল এক মিনিটেই সপ্তমে চড়িয়া ধমকাইয়া উঠিল, ছোটবাবু মেঠাই-মও খায়কে আস্ত হায় কি না, তাই ব্যাটাদের নবাব ঘোড়া একদও দান-পানি না পেলেই মরে যাবে ! যাও, আভি লে যাও । কোচম্যান প্রভূর মনের ভাব বুঝিতে না পারিয়া সভায় সেলাম করিয়া প্রস্থান করিল। রসিক চক্রবর্তী বহুদিনের কৰ্ম্মচারী। এ-বাটতে সকলেই তাহাকে সম্মান করিত। সে কহিল, ছোটবাবু এলে গাড়ি ভাড়া করেও আসতে পারবেন। সেজন্ত কেন আপনি ব্যস্ত হচ্ছেন বড়বাৰু? রসিক যে নিকটেই ছিল গোকুল তাহ দেখে নাই। অপ্রতিভ হইয়া কহিল, আমি ব্যস্ত হব সে হতভাগার জন্তে ? তুমি বল কি চকোৰ্ত্তিমশাই ?-বাড়িতে মেয়ের অমন দিবারাত্রি কান্নাকাটি না করলে, আমি তো তাকে বাড়ি চুকতেই দিইনে । গোকুল মজুমদার রাগলে বাপের কুপুত র—ষ্ট্য। - রসিকের কিছুই অবিদিত ছিল মা ! বাটীর মেয়েরা যে বিনোদের আদর্শনে, একটি দিনের জন্তেও চোখের জল ফেলে নাই, তাহ সে জানিত। কিন্তু এ লইয় আর তর্কও করিল না। ’ সমারোহ করিয়া বাপের প্রান্ধ হইবে। গোকুল সেজন্তে বড় ব্যস্ত। কিন্তু কান इंs उाशद गाफ्द्रि शकांद श्रूिरे भफिदा हिन। एके-इरे नरह न वश्व ७कहै। } \o