পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দশম সম্ভার).djvu/২১৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


छूई দ্বিতীয় পক্ষের তরুণী ভাৰ্য্যার দেহরক্ষার জন্য শিবচরণ কেবলমাত্র নিজের দেহ ভিন্ন আর সমস্তই দিতে পারিত । হরিলক্ষ্মীর সেই দেহ বেলপুরে সারিতে চাহিল না । ডাক্তার পরামর্শ দিলেন হাওয়া বদলাইবার । শিবচরণ সাড়ে পোনর আনার মর্য্যাদামত ঘটা করিয়া হাওয়া-বদলানোর আয়োজন করিল। যাত্রার শুভ-দিনে গ্রামের লোক ভাঙ্গিয়া পড়িল, আসিল না কেবল বিপিন ও তাহার স্ত্রী । বাহিরে শিবচরণ যাহা না বলিবার তাহা বলিতে লাগিল এবং ভিতরে বড়পিণী উৰ্দ্দাম হইয়া উঠিলেন। বাহিরেও ধূস্থ ধরিবার লোকাভাব ঘটিল না, অস্তপুরেও তেমনই পিসীমার চীৎকারের আয়তন বাড়াইতে যথেষ্ট স্ত্রীলোক জুটিল । কিছুই বলিল না শুধু হরিলক্ষ্মী। মেজবৌয়ের প্রতি তাহার ক্ষোভ ও অভিমানের মাত্রা কাহারো অপেক্ষই কম ছিল না ; সে মনে মনে বলিতে লাগিল, তাহার বর্বর স্বামী যত অন্যায়ই করিয়া থাক, সে নিজে ত কিছুই করে নাই, কিন্তু ঘরের ও বাইরের যে-সব মেয়েরা আজ চেচাইতেছিল, তাহাদের সহিত কোন স্থত্রেই কণ্ঠ মিলাইতে তাহার ঘৃণা বোধ হইল। যাইবার পথে পান্ধীর দরজা ফাক করিয়া লক্ষ্মী উংস্কক-চক্ষুতে বিপিনের জীর্ণ গৃহের জানালার প্রতি চাহিয়া রহিল, কিন্তু কাহারও ছায়াটুকুও তাহার চোখে পড়িল না। কাশীতে বাড়ি ঠিক করা হইয়াছিল, তথাকার জল-বাতাসের গুণে নষ্ট-স্বাস্থ্য ফিরিয়া পাইতে লক্ষ্মীর বিলম্ব হইল না, মাস-চারেক পরে যখন সে ফিরিয়া আসিল, তাহার দেহের কাস্তি দেখিয়া মেয়েদের গোপন ঈর্ষার অবধি রহিল না । হিম-ঋতু আগতপ্রায়, দুপুরবেলায় মেজবে চিরক্কল্প স্বামীর জন্য একটা গরমের গলাবদ্ধ বুনিতেছিল, অনতিদূরে বসিয়া ছেলে খেলা করিতেছিল, সেই দেখিতে পাইয়া কলরব করিয়া উঠিল, মা, জ্যাঠাইমা । মা হাতের কাজ ফেলিয়া তাড়াতাড়ি একটা নমস্কার করিয়া লইয়া আসন পাতিয়া দিল ; স্মিতমুখে প্রশ্ন করিল, শরীর নিরাময় হয়েছে দিদি ? লক্ষ্মী কহিল, হা হয়েচে । কিন্তু না হতেও পারত, না ফিরতেও পারতাম, অথচ যাবার সময়ে একটিবার খোজও নিলে না । সমস্ত পথটা তোমার জানালার २ ● चैp