পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দশম সম্ভার).djvu/২৪৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


瓦引 ডাক্তারের দল অল্পক্ষণ হইল বিদায় লইয়াছেন । পারিবারিক চিকিৎসক বৃদ্ধ জ্ঞানবাবু যাইবার সময় বলিয়া গেলেন, বোধ হয় সমস্ত আফিঙটাই বার করে ফেলা গেছে –বৌমার জীবনের আর কোন শঙ্কা নেই। হরিশ একটুখানি ঘাড় নাড়িয়া কি ভাব যে প্রকাশ করিল, বৃদ্ধ তাহাতে মনোযোগ করিলেন না, কহিলেন, যা হবার হয়ে গেছে, এখন কাছে কাছে থেকে দিন-দুই সাবধানে রাখলেই বিপদটা কেটে যাবে। যে আঞ্জে, বলিয়া হরিশ স্থির হইয়া বসিয়ু পড়িল । সেদিন বার-লাইব্রেরী ঘরে আলোচনা অত্যন্ত তীক্ষু ও কঠোর হইয়া উঠিল । ভক্ত বীরেন কহিল, আমার শুরুদেব স্বামিজী বলেন, বীরেন, মানুষকে কখনো বিশ্বাস করবে না । সেদিন গোসাইবাবুর বিধবা পুত্রবধূর সম্বন্ধে যে স্ক্যাণ্ডালটা প্রকাশ হয়ে পড়েছিল তোমরা তা বিশ্বাস করলে না, বললে, হরিশ এ-কাজ করতেই পারে না । এখন দেখলে ? গুর দেবের রূপায় আমি এমন অনেক জিনিস জানতে পারি তোমরা যা ড্রিম কর না । ব্রজেন্দ্র বলিল, উঃ–হরিশটা কি স্কাউণ্ডে ,ল । ও-রকম সতীসাধ্বী স্ত্রী যার, কিন্তু মজা দেখেচ সংসারে ? বদমাইসগুলোর ভাগ্যেই কেবল এরকম স্ত্রী জোটে । বৃদ্ধ তারিণী চাটুয্যে ইকা লইয়া ঝিমাইতেছিলেন, কহিলেন, নিঃসন্দেহ । আমার ত মাথার চুল পেকে গেল, কিন্তু ক্যারেক্টারে কেউ কখনো একটা স্পষ্ট দিতে পারলে না । অথচ আমারই হ’লে সাত-সাতটা মেয়ে, বিয়ে দিতে দিতে দেউলে হয়ে গেলাম। যোগীনবাবু কহিলেন, আমাদের মেয়ে-ইস্কুলের পরিদর্শক হিসাবে লাবণ্যপ্রভা মহিলাটি দেখচি একেবারে আদর্শ। গভর্নমেণ্টে বোধ করি মুভ করা উচিত। ভক্ত বীরেন বলিলেন, আবসোলিউটুলি নেসেসরি । সম্পূর্ণ একটা দিন পার হইল না, সতী-সাধ্বীর স্বামী হরিশের চরিত্র জানিতে সহরে কাহারও আর বাকী রহিল না । এবং স্বহৃদবর্গের কৃপায় সকল কথাই তাহার কানে আসিয়া পৌছিল। উমা আসিয়া চোখ মুছিয়া কহিল, দাদা, তুমি আবার বিয়ে কর । Ro8 g