পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দশম সম্ভার).djvu/২৯১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


दांठ्J कttळाद्र शृंझ ইন্দ্ৰ কহিল, “ভয় নেই, জোর হাওয়া আছে, দেরি হবে না, আমার নতুন-পা কোলকাতা থেকে এসেছেন, তিনি গঙ্গা দিয়ে যেতে চান ।” যাক, দাড় বাধিয়া পাল খাটাইয়া ঠিক হইয়া বসিয়া আছি—অনেক বিলম্বে ইন্দ্রের নতুন-পা ঘাটে পৌছিলেন। চাদের আলোকে তাহাকে দেখিয়া ভয় পাইয়া গেলাম। কোলকা তার বাবু-অৰ্থাৎ ভয়ঙ্কর বাৰু। সিস্কের মাঞ্জা, চকচকে পাম্প-স্ব, আগ+. গোড়া ওভারকোটে মোড়া, গলার গলাবন্ধ, হাতে দস্তান, মাথায় টুপি—পশ্চিমের . শীতের বিরুদ্ধে তাহার সতর্কতার অস্ত নাই । আমাদের সাধের ডিঙিটাকে তিনি অত্যন্ত যাচ্ছে তাই বলিয়া কঠোর মত প্রকাশ করিয়া ইন্দ্রর কাধে ভর দিয়া আমার হাত ধরিয়া অনেক সাবধানে নৌকার মাঝখানে জাকিয়া বসিলেন । “তোর নাম কি রে ?” ভয়ে ভয়ে বলিলাম,—“শ্ৰীকান্ত ।” -. তিনি দাত খি চাইয়া বলিলেন, “আবার শ্ৰী-কান্ত ! শুধু কান্ত । নে, তামাক । সাজং। ইন্দ্র, হুকো-কলকে রাখলি কোথায় ? ছোড়াটাকে দে, তামাক সাজুক।” ওরে বাবা, মামুষ চাকরকেও ত এমন বিকট ভঙ্গি করিয়া আদেশ করে না । - ইন্দ্র অপ্রতিম্ভ হইয়া কহিল, "শ্ৰীকান্ত, তুই এসে একটু হাল ধুর, আমি তামাক সাজচি ” - আমি তাহার জবাব না দিয়া তামাক সাজিতে লাগিয়া গেলাম । কারণ তিনি “ ইন্দ্রর মাসতুতো ভাই, কোলকাতার অধিবাসী এবং সম্প্রতি এল. এ. পাশ করিয়াছেন। কিন্তু মনটা আমার বিগড়াইয়া গেল। তামাক সাজিয়া হুক হাতে দিতে তিনি প্রসল্প মুখে টানিতে টানিতে প্রশ্ন করিলেন, “তুই থাকিস কোথায় রে কাস্তে ? তোর গায়ে । ওটা কালোপান কি রে ; র্যাপার ? আহ র্যাপারের কি ঐ ! তেলের গন্ধে ভূত. পালায় । ফুটচে–পেতে দে দেখি, বসি ।” , “আমি দিচ্চি, নতুন-দা। আমার শীত করচে না এই নাও”—বলিয়া ইন্দ্র নিজেয়গায়ের আলোয়ানটা তাড়াতাড়ি ছুড়িয়া ফেলিয়া দিল । তিনি সেটা জড়ো করিয়া লইয়া বেশ করিয়া বসিয়া মুখে তামাক টানিতে লাগিলেন । শীতের গঙ্গা । অধিক প্রশস্ত নয়—আধ ঘণ্টার মধ্যেই ডিঙি ওপারে গিয়া ভিড়িল । কিন্তু সঙ্গে সঙ্গেই বাতাস পড়িয়া গেল। - - • ইক্স ব্যাকুল হইয়া কহিল, “নতুন-দা, এ যে ভারী মুস্কিল হলো—হাওয়া পড়ে, গেল । আর ত পাল চলবে না ।” : - নতুন-দ। জবাব দিলেন, “এই ছোড়াটাকে দে না, দাড় টাকুক।” ab>> 》。离一°心