পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দশম সম্ভার).djvu/৬৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ষোড়শী জীবানন্দ । বেশ, তা যদি না থাকে রক্ষা পাওয়াটা আমারই দরকার এবং তাতে লেশমাত্র ক্রটি হবে না জেনো । (ষোড়শী নিরুত্তর ) তুমি জবাব না দিতে পারে, কিন্তু তোমার এই বীরপুরুষটির নাম যে আমি জানিনে তা না । ষোড়শী। জানবেন বই কি। পৃথিবীর বীর পুরুষদের মধ্যে পরিচয় থাকবারই ত কথা । জীবানন্দ । সে ঠিক। কিন্তু এই কাপুরুষকে বার বার অপমান করবার ভারটা তোমার বীরপুরুষ সইতে পারলে হয়। যাক, এ চিঠি ছিড়লে কেন ? ষোড়শী । এর জবাব আমি দেব না । জীবানন্দ । কিন্তু সোজা নিৰ্ম্মল সাহেবকে না লিখে র্তার স্ত্রীকে লেখা কেন ! এ শব্দভেদী বাণ কি তারই শেখানো না কি ? ষোড়শী। তার পরে ? জীবানন্দ। তার পরে আজ আমার সন্দেহ গেল। বন্ধুর সংবাদ আমি অপরের কাছে শুনেচি, কিন্তু রায়মশায়কে যতই প্রশ্ন করেচি, ততই তিনি চুপ করে গেলেন। আজ বোঝা গেল তার অক্রোশটাই সবচেয়ে কেন বেশি । Hr ষোড়শী । ( সচকিতে ) নিৰ্ম্মলের সম্বন্ধে আপনি কি শুনেচেন ? জীবানন্দ । সমস্তই ! তোমার চমক আর গলার মিঠে অাওয়াজে আমার হাসি পাওয়া উচিত ছিল, কিন্তু হাসতে পারলাম না—আমার আনন্দ করবার এ কথা নয়। সেই ঝড় জল অন্ধকার রাত্রে একাকী তার হাত ধরে বাড়ি পৌঁছে দেওয়া মনে পড়ে ? তার সাক্ষী আছে। সাক্ষী ব্যাটারা যে কোথায় লুকিয়ে থাকে আগে থেকে কিছুই জানবার জো নেই। আমি যখন গাড়ি থেকে ব্যাগ নিয়ে পালাই ভেবেছিলাম কেউ দেখেনি । ষোড়শী। যদি সত্যই তা করে থাকি সে কি এত বড় দোষের ? জীবানন্দ । কিন্তু গোপন করার চেষ্টাটা ? এই চিঠির টুকরোটা ? নিজেই একবার পড়ে দেখ ত কি মনে হয় ? আমার মত ইনিও একবার তোমার বিচার করতে বসেছিলেন না ? দেখছি, তোমার বিচার করবার বিপদ আছে। (এই বলিয়া জীবানন্দ মুচকিয়া হাসিলেন। ষোড়শী নিরুত্তর ) এ আমি সঙ্গে নিয়ে চললাম, আবগুক হলে যথাস্থানে পৌঁছে দেওয়ার ক্রটি হবে না । এই ক'টা ছত্র আমার পুরুষের চোখকেই যখন ফাকি দিতে পারেনি, তখন আশা করি হৈমকেও ঠকাতে পারবে না। ষোড়শী নিরুত্তর } জীবানন্দ । কেমন, অনেক কথাই জানি ? & ©