পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দ্বাদশ সম্ভার).djvu/২৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রাখাল কহিল, তাই তো মনে হচ্ছে ভাই। কিন্তু কখনো শুনেচ এমন ব্যাপার ? না শুনিনি, কিন্তু বইয়ে পড়েচি। একখানা ইংরাজী উপন্যাসের আভাস পাচ্চি। কেবল আশা করি উপসংহারটা যেন না আর তার মত হয়ে দাড়ায়। রাখাল কহিল, নতুন-মার ওপর বোধ করি এখন তোমার ঘূণা জন্মালো তারক ? তারক কহিল, জন্মানোই তো স্বাভাবিক রাখাল । রাখাল চুপ করিয়া রহিল। জবাবটা তাহার মনঃপুত হইল না, বরঞ্চ মনের মধ্যে গিয়া কোথায় যেন আঘাত করিল। খানিক পরে বলিল, এর পরে দেশে থাকা জার চলল না। ব্ৰজবাৰু কলকাতায় এসে আবার বিবাহ করলেন—সেই অবধি এইখানেই আছেন । আর তুমি । রাখাল বলিল, আমিও সঙ্গে এলাম। পিসিমা তাড়াবার স্বপারিশ করে বললেন, ব্রজ, সেই হতভাগীই বালাইটাকে জুটিয়ে এনেছিল , ওটাকে দূর করে দে । নতুন-মার স্নেহের পাত্র বলে আমার পরে পিসিমা সদয় ছিলেন না। ব্ৰজবাবু শাস্ত মানুষ, কিন্তু কথা শুনে তার চোখের কোণটা একটু রুক্ষ্ম হয়ে উঠলো, তবে শাস্তভাবেই বললেন, ওই তো তার রোগ ছিল পিসিমা । আপদ-বালাই তো আর একটি জুটোয়নি—কেবল ও-বেচারাকে তাড়ালেই কি আমাদের স্থবিধে হবে ? পিসিমার নিজেদের কথাটা হয়ে গেছে তখন অনেকদিনের পুরনো সে বোধ হয় আর মনে নেই। বললেন, তবে কি ওকে ভাত-কাপড় দিয়ে বরাবর পুষতেই হবে না-কি ? না না, ও যেখানের মানুষ সেখানে যাক, ওর মুখ থেকে বাপ-মা মেয়ের কীৰ্ত্তি-কাহিনী শুমুক। নিজের বংশ-পরিচয়টা একটুখানি পাক । ব্ৰজবাবু একটুখানি হাসলেন, বললেন, ও ছেলেমানুষ; গুছিয়ে তেমন বলতে পারবে না, তার বরঞ্চ তুমি অন্য ব্যবস্থা করে। জবাব শুনে পিসিমা রাগ করে চলে গেলেন, বলে গেলেন, যা ভাল বোঝ কোরো, আমি আবু কিছুর মধ্যেই নেই। নতুন-মা যাবার পরে এ-বাড়িতে পিলিমার প্রভাবটা কিছু বেড়ে উঠেছিল। সবাই জানতো তার বুদ্ধিতেই এতবড় অনাচারটা ধরা পড়েচে । এতকালের লক্ষ্মী-স্ত্ৰ তো যেতেই বসেছিল। নবীনবাবুর দরুণ যে কারবারের লোকসান, তার মূলেও দাড়ালে৷ এই গোপন পাপ । নইলে কই এমন মতি-বুদ্ধি তো নবীনের আগে হয়নি ! পিলিমা বলতেও আরম্ভ করেছিলেন তাই । বলতেন, ঘরের লক্ষ্মীর সঙ্গে যে এ-সব বাধা। তিনি চঞ্চল হলে যে এমন হতেই হবে ? হয়েচেও তাই । তারক অনেকক্ষণ চুপ করিয়া থাকিয়া জিজ্ঞাসা করিল, কলকাতায় এসে ওদের বাড়িতেই কি তুমি থাকতে ? * של