পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (সপ্তম সম্ভার).djvu/১৬৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


श्रृंश्षांश् चफ़ि रुनैौब्र करt१ ७iइब्र छू भीड ठिख् च्यप्रां९ श्tश्वग्न क्झनांब्र कब्रिग्न डेटैिण । কিন্তু ইহা নতুন নহে ; যেদিন বায়ুপরিবর্তনের প্রস্তাব প্রথম উথাপিত হয়, সেদিনও সে এমনি স্বপ্নই দেখিয়াছিল। আজও সে তেমনি তাহার রুগ্ন স্বামীকে স্মরণ করিয়া র্তাহারই স্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করিয়া এক অপরিচিত স্থানের মধ্যে আনন্দ ও মুখ-শাস্তির জাল বুনিতে বুনিতে বিভোর হইয়া গেল। কখন এবং কতক্ষণ যে সে ঘুমাইয়া পড়িয়াছিল, তাহার স্মরণ নাই। সহসা নিজের নাম কানে যাইবামাত্রই সে ধড়মড় করিয়া উঠিয়া বসিয়া দেখিল, দ্বারের কাছে স্বরেশ দাড়াইয়া এবং সেই খোলা দরজার ভিতর দিয়া অজস্র জল বাতাস ভিতরে ঢুকিয়া প্লাবনের স্বষ্টি করিয়াছে। স্বরেশ চীৎকার করিয়া কহিল, শীগগির নেমে পড়, প্লাটফর্শে গাড়ি দাড়িয়ে । তোমার নিজের ব্যাগটা কোথায় ? অচলার দুই চক্ষে ঘুম তখনও জড়াইয়া ছিল, কিন্তু তাহার মনে পড়িল, এলাহাবাদ স্টেশনে জব্বলপুরের গাডি বদল করিতে হইবে । সে ব্যাগটা দেখাইয়া দিয়া শশব্যস্তে নামিয়া পড়িয়া ব্যাকুল হইয়া কহিল, কিন্তু এত জলের মধ্যে র্তাকে নামাবে কি করে ? এখানে পান্ধী-টান্ধী কিছু পাওয়া যায় না ? নইলে অস্থখ যে বেড়ে যাবে সুরেশবাবু। * স্বরেশ যে কি জবাব দিল, জলের শব্দে তাঁহা বুঝা গেল না । সে এক হাতে ব্যাগ ও অপর হস্তে অচলার একটা হাত দৃঢ়মুষ্টিতে চাপিয়া ধরিয়া ও-দিকের প্লাটফর্শের উদ্দেশ্রে দ্রুতবেগে টানিয়া লইয়া চলিল। এই ট্রেনটা ছাড়িবার জন্য প্রস্তুত হইয়া অপেক্ষা করিতেছিল, তাহারই একটা যাত্রিশূন্ত ফাস্ট ক্লাস কামরার মধ্যে অচলাকে ঠেলিয়া দিয়া স্বরেশ তাড়াতাড়ি বলিল, তুমি স্থির হয়ে বসো ; তাকে নামিয়ে আনি গে । তা হলে আমার এই মোট গায়ের কাপড়টা নিয়ে যাও, তাকে বেশ করে ঢেকে এনে । বলিয়া অচলা হাত বাড়াইয় তাহার গাত্রবস্ত্রটা স্বরেশের গায়ের উপর ফেলিয়া দিতেই সে দ্রুতবেগে প্রস্থান করিল। অন্ধকারে যতদূর দৃষ্টি যায়, অচলা সম্মুখে চাহিয়া দেখিতে লাগিল, পোস্টের উপর দূরে দূরে স্টেশনের লন্ঠন জলিতেছে ; কিন্তু এই প্রচও জলের মধ্যে সে আলো এমনি অস্পষ্ট ও অকিঞ্চিৎকর যে, তাহার সাহায্যে কিছুই প্রায় দৃষ্টিগোচর হয় না। জলে ভিজিয়া যাত্রীরা দুটোছুটি করিতেছে, কুলীরা মোট বহিয়া আনাগোনা করিতেছে, কৰ্মচারীরা বিব্রত হইয়া উঠিয়াছে—ঝাপসা ছায়ার মত তাহা দেখা যায় মাত্র। ক্রমশঃ তাহাও বিরল হইয়া আসিল, স্টেশনের ঘণ্টা তীক্ষুস্বরে বাজিয়া উঠিল এবং যে ট্রেন হইতে অচলা এইমাত্র নামিয়া আমিয়াছে, ভীষণ অজগরের স্থায় ষ্টোস-ফোস শব্দে Soo