পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (সপ্তম সম্ভার).djvu/২১১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


গৃহদাহ চক্ষে নূতন এবং আশ্চৰ্য্য বলিয়া ঠেকিল, এমন কি আপনাকে আপনিই যেন অরি একরকম বলিয়া বোধ হইতে লাগিল। ফটকের বাহিরে দাড়াইয়া প্রকাও জুড়ি ; নব-পরিচ্ছেদ সজ্জিত কোচম্যান মনিব জানিয়া উপর হইতে সেলাম করিল ; সহিল দ্বার খুলিয়া সসম্মানে সরিয়া দাড়াইল ; এবং তাহাকেই অনুসরণ করিয়া বৃদ্ধ রামবাবু যখন সম্মুখের আসন গ্রহণ করিয়া বসিলেন তখন সমস্তটাই অদ্ভূত স্বপ্নের মত মনে হইতে লাগিল। তাহার আচ্ছন্ন দৃষ্টি গাড়ির যে অংশটার প্রতিই দৃষ্টিপাত করিল তাহাই বোধ হইল, এ কেবল বহুমূল্য নয়, এ শুধু ধনবানের অর্থের দন্ত নয়, ইহার প্রতি বিলুটি যেন কাহার সীমাহীন প্রেম দিয়া গড়া। কঠিন পাথরের রাস্তার উপর চার জোড়া খুরের প্রতিধ্বনি তুলিয়া জুড়ি ছুটিল, কিন্তু অচলার কানের মধ্যে তাহ শুধু অস্পষ্ট হইয়া প্রবেশ করিল। তাহার সমস্ত অন্তর ও বহিরিস্ক্রিয় হয়ত শেষ পর্য্যন্ত এমন অভিভূত হইয়াই থাকিত, কিন্তু সহসা রামবাবুর কণ্ঠস্বরে সে চকিত হইয়া উঠিল। তিনি সম্মুখের দিকে দৃষ্টি আকর্ষণ করিয়া বলিলেন, যা, ওই তোমার বাড়ি দেখা যায়। লোকজন দাস-দাসী সবই নিযুক্ত করা হয়ে গেছে, মোটামুটি সাজানো-গোছানোর কাজও বোধ করি এতক্ষণে অনেক এগিয়ে এলে, শুধু তোমাদের শোবার ঘরটিতে মা, আমি কাউকে হাত দিতে মানা করে দিয়েটি। তার যাবার সময় বলে দিলাম, স্বরেশবাবু, বাড়ির আর যেখানে যা খুশি করুন গে, আমি গ্রাহ করিনে, শুধু মায়ের ঘরটিতে কাজ করে মায়ের আমার কাজ বাড়িয়ে দেবেন না । এই বলিয়া বৃদ্ধ একখানি সলঙ্গ হাসিমুখের আশায় চোখ তুলিয়াই একেবারে চুপ করিয়া গেলেন। তিনি কেন যে এমন করিয়া থামিয়া গেলেন, অচলা তাহ সেই মূহুর্তেই বুঝিল, তাই যতক্ষণ না গাড়ি নূতন বাংলার দরজায় আসিয়া পৌছিল, ততক্ষণ সে তাহার শুক বিবৰ্ণ মুখখানা বাহিরের দিকে ফিরাইয়া এই বৃদ্ধের বিস্মিত দৃষ্টি হইতে গোপন করিয়া রাখিল । গাড়ির শবো কুরেশ বাহিরে আসিল, দাস-দাসীরাও কাজ ফেলিয়া অন্তরাল হইতে সভয়ে তাহাজের নূতন গৃহিণীকে দেখিতে আসিল ; কিন্তু সে মুখের প্রতি চাহিয়া কেহই কোন উৎসাহ পাইল না । রামবাবুর সঙ্গে সঙ্গে অচলা নীরবে নামিয়া আসিল, স্বরেশের প্রতি একবার সে মুখ তুলিয়া চাহিয়াও দেখিল না ; তার পরে তিনজনেই নিঃশবে ধীরে ধীরে এই নূতন বাটার মধ্যে প্রবেশ করিল। তাহার ভিতরে-বাহিরে উপরে-নীচে কোথাও যে আনন্দের লেশমাত্র আভাস আছে, তাহা ক্ষণকালের নিমিত্ত কোনদিকে চাহিয়া কাহারো চক্ষে পড়িল না । - ఫిevరి