পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (সপ্তম সম্ভার).djvu/৩১৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বিন্দুর ছেলে যতক্ষণ না সেই এক ফোটা লোকটি এসে বাড়িতে পা দিলে ?—ওয়ে, তোরা আর সে ? তার কড়ে আঙুলের ক্ষমতাও তোদের বাড়িমৃদ্ধ লোকের নেই। বিন্দুর মা ঢুকিয় বলিলেন, জামাইয়ের মত আছে বিন্দু, তুইও দিন-কতক মামাদের সঙ্গে ঘুরে আসবি চল । বিন্দু মায়ের মুখের দিকে চাহিয়া থাকিয়া বলিল, আমার যাওয়া না-যাওয়া কি উার মতামতের উপর নির্ভর করে মা, যে, তিনি বললেই যাব ? আমার শত্রুর হুকুম না পেলে যাই কি করে ? মা কথাটা বুঝিয়া বলিলেন, তোর জায়ের কথা বলচি ? তার আর হুকুম নিতে হবে না। যখন আলাদা হয়ে তোরা চলে এসেচিদ, তখন উনি বললেই হ’ল । বিন্দু মাথা নাড়িয়া বলিল, না, তা হয় না । যতক্ষণ বেঁচে আছে ততক্ষণ যেখানেই থাক্, সেই সব । আর যাই করি মা, তাকে না বলে বাড়ি ছেড়ে যেতে পারব ন!— বঠ ঠাকুর তা হলে রাগ করবেন। .* এলোকেশী এইমাত্র উপস্থিত হইয়া শুনিতেছিলেন, বলিলেন, আচ্ছা, আমি বলচি তুমি যাও। বিন্দু সে-কথার জবাব দিল না। মা বলিলেন, বেশ ত, না হয় লোক পাঠিয়ে তার মত নে না বিন্দু। বিন্দু আশ্চৰ্য্য হইয়া বলিল, লোক পাঠিয়ে ? সে ত আরও মন্দ হবে মা ? আমি তার মন জানি, মুখে বলবে যাক, কিন্তু ভেতরে ভেতরে রেগে থাকবে, হয়ত বঠ ঠাকুরকে পাচটা বানিয়ে বলবে—না মা, তোমরা যাও, আমার যাওয়া হবে না । মা জিদ করিলেন না, চলিয়া গেলেন । এবার ফাক বাড়ি প্রতি মূহূত্তে। তাহাকে গিলিবার জন্য র্হা করিতে লাগিল । নীচের একটি ঘরে এলোকেশীরা থাকেন, দোতলার একটি ঘর তাহার নিজের, আর সমস্ত খালি খ খ করিতে লাগিল। সে শূন্য মনে ঘুরিতে ঘুরিতে তেতলার একটি ঘরে আসিয়া দাড়াইল । কোন স্থদুর ভবিষ্যতে পুত্র-পুত্রবধূর নাম করিয়া এই ঘরখানি সে তৈরী করাইয়াছিল। এইখানে ঢুকিয়া সে কিছুতেই চোখের জল রাখিতে পারিল না। নীচে নামিয়া আসিতেছিল, পথে স্বামীর সহিত দেখা হইবামাত্রই সে বলিয়া উঠিল, ই গা, কি-রকম হবে তবে ? মাধব বুঝতে না পারিয়া বলিল, কিসের ? বিন্দু আর জবাব দিতে পারিল না । হঠাৎ দীর্ঘনিশ্বাস ফেলিয়া বলিল, না না, তুমি যাও—ও কিছু না। - 软 was on