পাতা:শিখ-ইতিহাস.djvu/২২১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ծՊԾ * শিখ-ইতিহাস ডেভিড অক্টারলোনিকে বিশেষ ক্ষমতা প্রদান করিয়া বৃটিশ গবর্ণমেণ্ট আদেশ করিলেন,—তিনি রণজিৎ সিংহকে বলিবেন, হিন্দুস্থানের সীমামধ্যে ভূতপূর্ব কাবুলসম্রাটের উপস্থিতি প্রার্থনীয় নহে; তাহার কার্যকলাপ গবর্ণমেণ্টের পক্ষে অশুভজনক বলিয়া প্রতীয়মান হয় । ইংজ্বাজ গবর্ণমেণ্টের এই আদেশ সত্ত্বেও, তাহার পরিবারের ভরণপোষণ নির্বাহার্থে পূর্বে যে ১৮ হাজার টাকার বন্দোবস্ত ছিল, তাহার আগমনে সেই টাকার পরিমাণ বধিত হইয়া ৫০ হাজার টাকা নির্ধারিত হইল। তিনি স্বয়ং যথোপযুক্ত সম্মানসম্বৰ্দ্ধনা এবং আদর অভ্যর্থনা প্রাপ্ত হইলেন।২৬ এইরূপে সা স্বজা মহারাজের হস্তম্বলিত হইলেন। অতঃপর, কাশ্মীর অধিকারকল্পে তিনি আরও কয়েকবার চেষ্টা করিলেন বটে ; কিন্তু সা স্বজার নামে আর কোন ফলোদয় হইল না । কিন্তু সেই পার্বত্য উপত্যকা অধিকারের জন্য রণজিৎ সিং পুনঃপুনঃ চেষ্টা করিতে লাগিলেন। ইতিমধ্যে তৎপ্রদেশের শাসনকর্তা ইংরাজদিগের সহিত পত্রাপত্র চালাইতেছিলেন। ২৭ পীর-পাঞ্জাল পর্বতশ্রেণীর দক্ষিণভাগস্থিত শাসনকর্তৃগণ অধীনতা-পাশে আবদ্ধ হওয়ায়, ১৮১৪ খ্ৰীষ্টাব্দের মধ্যভাগে সামরিক সাজ-সজ্জা প্রক্রিয়াদি চলিতে লাগিল। শারীরিক অনুস্থতা-নিবন্ধন বহুদশী স্বচতুর মোকুম চাদ রাজধানীতেই অবস্থান করিতে লাগিলেন। তত্ৰাচ তিনি রণজিৎ সিংহকে পূর্ব হইতেই সতর্ক করিয়া দিলেন ; বর্ষাসমাগমে যে বিপৎপাতের সম্ভাবনা, তদ্বিষয়ে তাহাকে উপদেশ দিয়, তৎকালে কাশ্মীর আক্রমণ কিছুকালের জন্য স্থগিত রাখিতে, বৃদ্ধ মন্ত্রি পুনঃপুনঃ জিদ করিতে লাগিলেন। কিন্তু আবশ্বকীয় সকল বন্দোবস্তই স্থির হইয়াছিল। সুতরাং মহারাজের সৈন্যদল দুই ভাগে বিভক্ত হইয়া, কাশ্মীরে প্রবিষ্ট হইল। এক দল সৈন্ত অগ্রবর্তী হইয়া, উচ্চ প্রাচীর উল্লঙ্ঘন করিল। তাহাঁদের আক্রমণে এক দল আফগান সৈন্য বিতাড়িত হইল। তখন সৈন্ত দল পূর্ণোদ্যমে ‘স্বপেইন' নামক স্থান আক্রমণ করিল। কিন্তু তাহাদের সে চেষ্টা ব্যর্থ হওয়ায়, শিখ সৈন্য সঙ্কীর্ণ পার্বত্য পথে প্রত্যাগমন করিল। তৎকালে শিখ-সৈন্ত বহুকাল সেই পার্বত্য-উপত্যকার সীমাস্তপ্রদেশে অবস্থান করিতেছিল। তত্ৰত্য শাসনকর্তা, মহম্মদ আজীম খা, রণজিৎ সিংহের ২৬। ১৮১৫ খৃষ্টাব্দের ২রা ও ২১শে আগষ্ট তারিখের এবং ১৮১৬ খৃষ্টাব্দের ১৪ই, ২১শে ও ২৮শে সেপ্টেম্বর তারিখের গবর্ণমেণ্ট প্রেরিত স্তার ডেভিড অকটারলোনির পত্র। ওয়াফা বেগমকে পূর্বেই জানান হইয়াছিল, ইংরাজদিগের সহায়তা লাভের, স্তার পরিবারবর্গের কোনই সত্বাধিকার নাই। ইস্তুজগণ তাহাদিগের কাধে হস্তক্ষেপ করিতেও ইচ্ছা করেন না। ( ১৮১২ খৃষ্টাব্দের ১৯শে ডিসেম্বর এবং ১৮১৩ খৃষ্টাব্দের ১লা জুলাই তারিখে দিল্লীর রেসিডেন্ট, গবর্ণমেণ্টকে যে পত্র শান্ত এন্থলে, उांश३ जठेवा ।) تم سمحتخة" DDH HA DDD DBB DDDDD D gggB DDBDD DBBBB BDD DD BDDS অকটারলোনির পত্র। - -