পাতা:শিখ-ইতিহাস.djvu/৩৩১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


•२br♚ শিখ-ইতিহাস হইয়াছিল ; প্রাদেশিক সৈন্যদলের সাহায্য হেতু তাহারা পরস্পর ব্যবস্থ-বন্দোবস্ত স্থির করিয়াছিল । বস্তুতঃ, সীমান্ত প্রদেশে শিখগণ স্বাভাবিক বীরত্ব প্রদর্শন করিতে লাগিল ; ১৮৪৩ খৃষ্টাব্দের শেষ ভাগে গিলগিট রাজ্য আক্রান্ত ও কাশ্মীরের অন্তভূক্ত হইল। পঞ্চায়েতগণ বুঝিতে পারিলেন যে, শিখ-সৈন্যকে রাজ্যমধ্যে ছিন্ন-বিচ্ছিন্ন করিয়া, রাজা এবং তাহার পরামর্শদাতা উভয়েই অতিরিক্ত পার্বত্য-সৈন্য সংগ্রহ করার মন্ত্রণা করিয়াছেন । র্তাহারা স্থির করিলেন, এইরূপ উপায়ের সার্থকতা প্রতিপাদন করা আবশ্যক , সন্তোষজনক প্রমাণ প্রদান না করিলে, এবং সন্দেহভঞ্জন ব্যতিরেকে, কোন সৈন্যদল লাহোৱ পরিত্যাগ করিতে পারিবে না, কমিটিতে তাহাই স্থির হইল । এইরূপে হীরা সিংহ, সিন্ধু-দেশস্থ ইংরাজ-সৈন্যের ভাবী সাহায্যের আশায় রহিলেন । তদানুষঙ্গিক কয়েকটি সৈন্যদল তৎকালে শতদ্রু অভিমুখে গমন করায়, তাহার সন্দেহ বর্ধিত হইল। অন্যদিকে তাহাতে ইংরাজদিগের হস্তে শিখজাতির আসন্ন বিপদের বিষয় জানাইয়া দিল। ‘খালসা সৈন্য এই ইংরাজসৈন্যের সম্মুখীন হইতে সম্পূর্ণ অনিচ্ছুক ছিল । ইংরাজ কর্তৃপক্ষীয়গণের নিকট প্রতিশ্রুত খাদ্যদ্রব্য ও অন্যান্য আবশ্যকীয় দ্রব্য আহরণের ভাণ করিয়া, একদল শিখ-সৈন্য কুণ্ডর অভিমুখে এবং অপরাপর সৈন্যদল রাজধানীর সন্নিকটবতী স্থানে প্রেরিত হইল ॥৮১ বস্তুতঃ, রণজিৎ সিংহও সময়ে সময়ে এইরূপ উপায় অবলম্বন করিতেন ; তখন ইংরাজ-সৈন্য অসংখ্য হইলেও তাহার ভয় বুদ্ধি হইত না।৮২ কিন্তু বারংবার সিদ্ধিলাভ হেতু এবং ইংৱাজ্বদিগের কার্যে নিযুক্ত স্থায়ী ও শিক্ষিত সৈন্যদলের তাৎকালিক লজ্জাকর ও ঘৃণিত ব্যবহারের জন্য, নিজ সৈন্য ও সাহায্যকারী ইংরেজ সৈন্যের ভয়, হীরা সিংহের মন হইতে অনেক পরিমাণে অস্তহিত হইয়াছিল। সিপাহী সৈন্য সিন্ধু অভিমুখে গমনে অস্বীকার করিল, এবং শিখ-সৈন্য আতিশয় হৃঃাস্তঃকরণে এবং বিস্ময়াবিষ্ট হইয়া, সিপাহী বিদ্রোহের ক্রমোন্নতি প্রতীক্ষা করিতে লাগিল । দেশ-প্রসিদ্ধ সিপাহীগণ তাহাদের নিজ গবর্ণমেণ্টের বিপক্ষতাচরণে দণ্ডায়মান,—এই আকস্মিক দৃপ্ত শিখজাতির পক্ষে প্রকৃতই অভিনব ব্যাপার। কিন্তু ইউরোপীয় সৈন্যের যুদ্ধকৌশলে, অশ্বারোহী সৈন্যের উজ্জলতর দৃষ্টাস্তে এবং সিপাহীসৈন্যের বশ্যতা স্বীকারের জ্ঞান পুনরায় উদয় হুওয়ায়, বিশাল বৈদেশিক শক্তির সহিত অনিবার্য ও সাংঘাতিক সংঘর্ষের আশালোক একেবারেই নির্বাপিত হইল। ব্রিটিশ সৈন্য সিন্ধুশোভিমুখে গমন করায়, কুণ্ডর হইতে লাহোর সৈন্য প্রস্থান করিল।৮৩ যাহা হউক, ব্রিটিশ গবর্ণমেণ্টের প্রতি অসন্তোষের প্রকৃত কিংবা কাল্পনিক কারণের অভাব ছিল না। পরিশেষে এই অসন্তোষের ফলে, লাহোর সৈন্ত মর্মাহুত হয় ; ৮৯. লেফটান্ট-কৰ্ণেল রিচমণ্ডের পত্র ১৮• খৃষ্টাব্দের ২৩শে মার্চ, এবং ১৮৪৩ খৃষ্টাব্দের ২৭শে ডিসেম্বর। ৮২। ১৮৪২ খ্ৰীষ্টাব্দের সার ডেভিড অক্টারলোনির পত্র ঃ ১৬ই অক্টোবর। ৮৩ । ১৮৪৪ খ্ৰীষ্টাব্দের ২৮শে এপ্রিল তারিখে লেফটেনান্ট-কর্ণেল রিচমও গবর্ণমেণ্টকে যে পত্র লেখেন, এস্থলে তাহাই দ্রষ্টব্য।