পাতা:শিখ-ইতিহাস.djvu/৩৯০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ইংরাজদিগের সহিত যুদ্ধ °C8@ সময়ে ছদ্ধর্ষ ও দুৰ্দ্ধমনীয় হইয়া উঠিতে পারে, এক্ষণে র্তাহাকেই সন্তুষ্ট রাখা বৃটিশ গবর্ণমেণ্টের প্রধান কর্তব্য । তৎকালে লাহোর রাজকোষের অবস্থা অতীব শোচনীয় হইয়া পড়িয়াছিল। লাল সিংহও শক্ৰকে অপসারিত করিয়া আপনার উন্নতির পথ মুক্ত করিতে স্বতঃপরতঃ চেষ্টা করিতেছিলেন । সেই অবসরে গবর্ণর-জেনারেল ও কারাস্তরে রাজা গোলাপ সিংহের আশঙ্কুযায়ী তৃপ্তি-বিধান করিলেন । তাঁহাতে রণজিৎ সিংহের উত্তরাধিকারীর আধিপত্য-প্রতিপত্তি আরও হ্রাস হইল। জম্মুর রাজা আপনার সামান্য গণ্ডীর মধ্যে বিপুল ক্ষমতা সীমাবদ্ধ রাখিতে ইচ্ছা করিলেন না। তখন যুদ্ধের ব্যয়ভার নির্বাহের জন্য ইংরেজগণ যে ক্ষতিপুরণের দাবী করিয়াছিলেন, লাহোর গবর্ণমেণ্ট তাহার তৃতীয়াংশের অধিক পরিশোধ করিতে সক্ষম হইলেন না ; তাহার দুই তৃতীয়াংশ বাকী রহিল। স্বতরাং বৃটিশগবর্ণমেণ্ট টাকার পরিবর্তে রাজ্য গ্রহণ করিলেন । পঞ্জাব ব্যবচ্ছেদ আরম্ভ হইল ; কাশ্মীর এবং বিপাশা হইতে শতদ্রু নদী পর্যন্ত বিস্তৃত ভূ-খণ্ড পঞ্জাব হইতে পৃথক হইয়া গেল ; গোলাপ সিং সেই রাজ্য প্রাপ্ত হইয়া লাহোরের অধীনতাপাশ হইতে মুক্ত হইলেন। রাজ্যলাভের জন্য তন্মুল্যস্বরূপ গোলাপ সিং, বৃটিশ গবর্ণমেণ্টকে ১০ লক্ষ পাউণ্ড ষ্টালিং প্রদান করিলেন । শিখদিগের ক্ষমতা হ্রাস করা সম্পর্কে বলিতে গেলে ইংরেজগণ অতি চতুরতার সহিত এই নীতি অবলম্বন করিয়াছিলেন ; কিন্তু এই সকল কার্য-প্রণালী বৃটিশ নামের মহত্বের সম্পূর্ণ অযোগ্য হইয়াছিল ; তাহাতে বৃটিশ নামের গৌরব কিছুই রক্ষিত হয় নাই। যুদ্ধ ঘোষিত হওয়ার পূর্বে, গোলাপ সিং আপন প্রভু লাহোরপতিকে দণ্ড স্বরূপ ৬৮ লক্ষ টাকা ( ৬৮,• •,• • পাউণ্ড) প্রদান করিতে স্বীকৃত হন,-সে বিষয় বিবেচনা করিলে বৃটিশ গবর্ণমেণ্টের এই নীতি সম্বন্ধে ঘোর আপত্তি উত্থাপিত হইতে পারে।৭৬ প্রাচ্য এবং প্রতীচ্য উভয় মহাদেশের প্রথা অনুসারে, প্রত্যেক জায়গীরদার তাহার প্রভুকে বৈদেশিক যুদ্ধাদি সময়ে কিংবা পারিবারিক অস্তবিবাদে সাহায্য প্রদান করিয়া থাকে । সুতরাং যে ১০ লক্ষ পর্যন্ত ষ্টালিং নাজাই পড়িয়াছিল, লাহোরের অধীনস্থ জায়গীরদার হিসাবে, তাহ গোলাপ সিংহের পরিশোধ করা উচিত ছিল। এমতাবস্থায় স্বাধীনভাবে লাহোরের অধিকারভুক্ত প্রদেশ সমূহে আধিপত্য বিস্তার করিয়া, গোলাপ সিংহ কোন মতেই ন্যায়পরায়ণতার পরিচয় প্রদান করেন নাই। রাজার উত্তরাধিকারী পদে প্রতিষ্ঠিত হওয়ায়, শিখগণ বিশেষ অসন্তুষ্ট হইয়াছিল। গোলাপ সিং কখনও এরূপ স্বাতন্ত্র্যতা গ্রহণের আশা করেন নাই ; কিন্তু রণজিৎ সিংহের সাম্রাজ্যের মন্ত্রিবর্গ গোলাপ সিংহকে বিতাড়িত করিতে ইচ্ছা করিয়াছিলেন। এক্ষণে গোলাপ সিং রাজশক্তি ও প্রভুত্ব-ক্ষমতা লাভ করিলেন তাহাতে সকলেরই ঈর্ষা বৃদ্ধি হইল,—সকলেরই মনে আত্মোন্নতির আশা • । ১৮৪৫ খৃষ্টাব্দের এই মে গবর্ণমেণ্টের বরাবর ম্যাজয় ব্রডফুটের পত্র। এই টাকা গোলাপ সিং প্রদান করিয়াছিলেন, গ্রন্থকার কখনও তাহ শুনেন নাই, কিংবা তাহাতে তিনি বিশ্বাসও করেন না।