পাতা:শিখ-ইতিহাস.djvu/৪০৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


দ্বিতীয় শিখযুদ্ধ 39లి. আক্রমণ করিল। প্রথমেই বল্লমের আঘাতে র্তাহাকে ঘোড়া হইতে ফেলিয়া দিল,পরক্ষণেই তরবারি দ্বারা তাহাকে গুরুতরূপে আহত করিল। আর দুই একটা আঘাত প্রাপ্ত হইলে, তখনই এগনিউএর প্রাণবায়ু বহির্গত হইত ; ইত্যবসরে এগনিউ-এর শরীররক্ষকগণ অগ্রসর হইল। তাঁহাদের কর্তৃক বাধা প্রাপ্ত হওয়ায়, নৃশংস সৈনিক-পুরুষ খালের মধ্যে পড়িয়া গেল। নিদারুণ আহত হইয়া এগনিউ প্রাণে রক্ষা পাইলেন । ইংরেজ ঐতিহাসিকগণ বলেন,—মূলরাজ এ ক্ষেত্রে উপস্থিত ছিলেন ; কিন্তু তিনি এ ব্যাপারে কোনই হস্তক্ষেপ করেন নাই ; বরং এই হত্যাকাণ্ডের সময় জনসঙ্ঘের মধ্য দিয়া বেগে ঘোড়া চালাইয়া তিনি দুর্গের বাহিরে আপন “আম খাস” প্রাসাদে পলিয়ন করিয়াছিলেন । যাহা হউক, এ ক্ষেত্রে কেবল যে এগনিউ আহত হইলেন, তাহা নহে । লেফটেনাণ্ট এণ্ডারসন এ সময় অন্য পথ দিয়া পলায়ন করিতেছিলেন । মূলরাজের কয়েকজন শরীর-রক্ষক, র্তাহাকেও আক্রমণ করিয়া গুরুতররূপে আহত করিল ; তিনি মৃতবৎ অচৈতন্যভাবে পথিমধ্যে পড়িয়া রহিলেন । অচৈতন্য অবস্থায়, কতকগুলি গুর্থী-সৈন্য শিবিকায় করিয়া তাহাকে ইদগায় লইয়া আসে। এই সময় খ সিং এবং মূলরাজের সম্বন্ধী রং রাম কর্তৃক এগনিউও ইদগায় সংবাহিত হন । প্রধানতঃ রং রামের চেষ্টায় একটা হাতীর উপর করিয়া এগনিউকে ইদগায় আনা হইয়াছিল ; এবং র্তাহার ক্ষতস্থানসমূহে তখনকার মত যেমন-তেমন করিয়া ব্যাণ্ডেজ বাধিয়া দেওয়া হইয়াছিল। এগনিউ অপেক্ষাকৃত সবল ছিলেন ; কিন্তু এণ্ডারসান আর উঠতে পারেন নাই। বলা বাহুল্য, এই বিপর্যয়ের সময় ব্রিটিশ-পক্ষের সৈন্যগণ দুর্গাধিকার ত্যাগ করিয়া প্রত্যাবৃত্ত হইতে বাধ্য হইয়াছিল । আহত অবস্থাতেই এগনিউ সমস্ত ঘটনা বর্ণনা করিয়া লাহোরের রেসিডেন্টের নিকট এক পত্র লিখিলেন, এবং লেয়-প্রদেশে রাজস্ব-সংগ্রহের ও শাস্তি স্থাপনের জন্য লেফটেনাণ্ট এডওয়ার্ডসের অধীনে যে একদল সৈন্য ছিল, তাহাদিগকে সাহায্যাৰ্থ আহবান করিলেন। অধিকন্তু তিনি মূলরাজকেও এক পত্র লিখিলেন। মূলরাজ যদি আপন নির্দোযিতাপ্রতিপন্ন করিতে চাহেন, তাহা হইলে অপরাধীদিগকে ধরিয়া লইয়া স্বয়ং ইদগায় আসিয়া উপস্থিত হউন,—সেই পত্রে তাহার প্রতি সেইরূপ আদেশ জারি হইল। মূলরাজ কি ভাবিলেন, তাহা বলা যায় না ; হয় তো তিনি মনে করিলেন, যাহার একবার তাহার সহিত বিশ্বাসঘাতকতা করিয়াছে, তাহারা আবারও যে বিশ্বাস-ঘাতকতা না করিতে পারিবে, তাঁহারই বা কারণ কি ? যাহা হউক, এগ:নিউর প্রস্তাবে মূলরাজ অস্বীকৃত হইলেন । প্রস্তাবিত বিষয়ে আপনার অক্ষমতার বিষয় জানাইয়া তিনি বলিয়া পাঠাইলেন,—মূলতানের হিন্দু ও মুসলমান সমস্ত সৈন্যদল এক্ষণে বিদ্রোহী হইয়াছে ; ব্রিটিশ কাচারিগণ আপনাদের নিরাপদ-পথ আপনার অন্বেষণ করুন। যৎকালে মূলরাজ এই উত্তর প্রদান করিলেন, সে সময়ে মূলতানের প্রধান প্রধান হিলু, মুসলমান এবং শিখ সামন্তগণ র্তাহার সম্মুখে উপস্থিত ; সকলেই স্ব স্ব ধন্মের নামে প্রতিজ্ঞা করিয়া মূগরাজের পক্ষাবলম্বনে স্বীকৃত হইতেছে —এই অবস্থা দেখিয়া, এই সংবাদ লইয়া, দুত ব্রিটিশ-শিবিরে প্রত্যাগমন