পাতা:শিখ-ইতিহাস.djvu/৪১৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


দ্বিতীয় শিখ যুদ্ধ (9ట్రS. একব্যক্তি ডেরাগাজি খাঁ এবং তদস্তগত প্রদেশের শাসনভার প্রাপ্ত হইয়াছিলেন ; তাহার" সহিত খয়রা খ৷ নামক একজন ক্ষমতাশালী সর্দারের মনোমালিন্য ছিল । এইবার বৃটিশ-পক্ষ খয়রা খার সহায়তা-গ্রহণে কৌশল-জাল বিস্তার করিলেন। "কণ্টকে নৈক কণ্টকং”—এই কুটনীতির প্রভাবেই ভারতে বৃটিশ-সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠা ; ডেরাগাজি খী আক্রমণেও তাহার সেই নীতি অবলম্বন করিলেন । খয়রা খাকে হস্তগত করায়, তাহার পুত্র গোলাম হায়দার খ৷ কটলাণ্ডের সৈন্যদলে মিলিত হইল ; এবং ২৭শে মে তারিখে, বহুসংখ্যক সৈন্য লইয়া, গোলাম হায়দার নিজেই লুঙ্গা মল্পকে সিন্ধুনদের পরপারে বিতাড়িত করিল। অতঃপর ডেরাগাজি-খায় ঘোর যুদ্ধ আরম্ভ হইল ; এবং বৃটিশ পক্ষের কিছুমাত্র সাহায্য গ্রহণ না করিয়া, গোলাম হায়দার একাই আপনার সৈন্যদল লইয়া সে যুদ্ধ চালাইতে লাগিল । ২০শে মে রাত্ৰিযোগে এবং পরদিন প্রাতঃকাল পর্যস্ত ঘোর যুদ্ধ চলিল। এই যুদ্ধে মূলরাজের পক্ষীয় জুলাল খ এবং তাহার সহচর লুঙ্গামল্ল ও চৈতন্য মল্প পরাজিত হইলেন। এই যুদ্ধেই লুঙ্গা মল্প বন্দী, এবং চৈতন্য মল্প নিহত হন। অবশেষে, আর কোন বাধা প্রদান না করিয়া, গেলাম হায়দারের হস্তে ডের গাজি খ সমৰ্পণ পূর্বক বন্দী শিখ-সৈন্যগণ মুক্তিলাভ করে। গোলাম হায়দার নগর অধিকার করিয়া বলিলে, পরাজিত শিখসৈন্যগণ নদী পার হইয়া চলিয়া যাইবার অনুমতি প্রাপ্ত হয় । ডের গাজি খার যুদ্ধে পরাজয়ের পর মূলরাজের সৈন্যদল সিন্ধুনদের পূর্ব তীরে “কোরিসি” নামক গ্রামে আশ্রয় গ্রহণ করিল ; তাহারা আর অধিক দূর অগ্রসর হইতে সাহসী হইল না। এই সময়ে ভাওয়াল খাঁর সৈন্যদল শতদ্রু পার হইয়া স্বজাবাr আক্রমণের জন্য অগ্রসর হইতে লাগিল। মুলতান হইতে স্বজাবাদ পচিশ মাইল পশ্চিমে অবস্থিত। ভাওয়াল খীর সৈন্যদল স্বজাবাদের দিকে অগ্রসর হইলে, মূগরাজের সৈন্যদল তাহাদিগকে বাধা দিবার জন্য প্রস্তুত হইল। মূলরাজ আদেশ প্রচার করিলেন,—বৃটিশ-সৈন্য আসিয়া ভাওয়াল খাকে সাহায্য করিবার পূর্বেই যেন ভাওয়াল খার সৈনদলের গতিরোধ করা হয় । প্রকারাস্তরে এক্ষণে তিন দল সৈন্য তিন দিকে সমবেত হইল। মূলরাজের সৈন্য মূলরাজের সম্বন্ধী রঙ্গ রামের অধীনে পরিচালিত হইতে লাগিল; সেই দলে ৮ সহজ হইতে ১• সহস্ৰ অশ্বারোহী ও পদাতিক সৈন্য এবং ১০ টি কামান সজ্জিত হইল। ভাওয়াপুরের সৈন্যদলে ৮ সহস্ৰ অশ্বারোহী ও পদাতিক, ১১টা বৃহৎ কামান, এবং ৩-টা জানুৱক' বা ক্ষুদ্ৰ কামান ছিল ; ঐ দল চন্দ্রভাগা নদীর পূর্ব তীরে ফতে মহম্মদ খাঁ ঘোরীর অধিনায়কত্বে পরিচালিত হইতে লাগিল। সেনাপতি এডওয়ার্ডসের সৈন্যদল দুই ভাগে বিভক্ত হইল । তাহার এক ভাগ জেনারেল কটলাণ্ডের অধীনে, এবং অন্য ভাগ এডওয়ার্ডসের অধীনে পরিচালিত হইতে লাগিল। প্রথমোক্ত দলে ১৫ শত সুদক্ষ বিশ্বক" পদাতিক শিখ গোলন্দাজ ও দশটি কামান, এবং শেষোক্ত দলে ৫ সহস্ৰ অশ্বারোহী ও পদাতিক সৈন্য এবং ৩-টি জামুরক কামান রহিল । এডওয়ার্ডসের এবং কটগাণ্ডের ૨8