পাতা:শিখ-ইতিহাস.djvu/৬৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


দেশের বিবরণ ও অধিবাসীগণ >> পরিশ্রমী ঔপনিবেশিকদিগকে অল্পহারে জমি প্রদান করিয়া তাহাদিগকে সাহায্য করিয়া থাকেন । এই কারণে, বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মধ্যে জাতিগত পার্থক্যেরও অনেকটা পরিবর্তন ঘটয়াছে। ভারতবর্ষের প্রত্যেক সম্প্রদায়ের লোক পরস্পর পৃথক থাকিতে এবং বংশমর্যাদা ও জাতিগত পার্থক্য অক্ষুন্ন রাখিতে ভালবাসে ; তজ্জন্ত তাহারা বিশেষরূপ যত্নবান হয় । ইহার ফলে, ভিন্ন ভিন্ন জাতি ও বংশের সংখ্যা একরূপ অসীম হইয়া উঠিয়াছে। কিছুকাল হইল, সিন্ধুনদের উত্তরখণ্ডের শিখরাজ্যে 'বেলুচি'গণ উপনিবেশ স্থাপন করিয়াছে ; বিগত একশত বৎসরের মধ্যে ‘সিন্ধিয়ান জাতির দাউদপুত্র সম্প্রদায়" শতদ্রুর নিম্নভূমিগুলি অধিকার করে। দিল্পী হইতে ফিরোজপুরে 'ডোম্বার’ জাতি এবং মিবার হইতে শতদ্রু তীরবর্তী পাকপট্টম নামক স্থানে ‘জোহিয়া’গণ উপনিবেশ স্থাপন করিয়াছিল। এতদুভয় জাতির স্থানান্তর-গমন জনশ্রুতিমূলক বলিয়া বোধ হয় না – ইতিহাসেও ইহা বর্ণিত আছে। পরিশ্রমী হিন্দু ‘মেটাম’গণ ক্রমশঃ রাড়ী ও চন্দ্রভাগ হইতে পূর্বদিকে, গ্রাম হইতে গ্রামাস্তরে অগ্রসর হইয়া, অধিকতর সাহসী অথচ অপেক্ষাকৃত কম পরিশ্রমী সম্প্রদায়-সমূহের সহিত ধীরে ধীরে মিলিত হইতেছে। যদিও বর্তমান সময়ে বৌদ্ধ, ব্রাহ্মণ এবং মুসলমানদিগের মধ্যে ধর্মযুদ্ধ উপস্থিত হয় না ; যদিও অস্তত: বৌদ্ধ এবং ব্রাহ্মণ্য ধর্মাবলম্বীদিগের ধর্মবন্ধন কতক পরিমাণে শিথিল হইয়া পড়িয়াছে ;-তথাপি বৌদ্ধ, ব্রাহ্মণ ও মুসলমান সকলেই অপরাপর সকল জাতিকেই নিজ নিজ ধর্মে দীক্ষিত করিতে সর্বদা যত্নবান। মুসলমান ধর্ম এখনও জীবনী শক্তি প্রদান করিতে পারে বলিয়া,—এখনও মুসলমান ধর্মের নামে মানসিক উত্তেজনা বৃদ্ধি হয় বলিয়া, মুসলমানগণ বহুদিন পর্যন্ত অসভ্য জ্ঞানহীন ব্যক্তিগণকে তাহাদের ধর্মে দক্ষিত করিতে সমর্থ হইবে। ইসলাম ধর্ম ইসকার্দেী হইতে লে পর্যন্ত সিন্ধুনদের উত্তরাংশে প্রচারিত হইতেছে এবং ক্রমে বৌদ্ধদিগকে ধর্মাস্তর গ্রহণ করিতে বাধ্য করিতেছে। পেশোয়ারের সীমাস্তবর্তী পৌত্তলিক ‘কাফের”দিগের রাজ্যের সীমাও ক্রমশঃ সঙ্কীর্ণ হইয়া আসিতেছে। কাশ্মীরের দক্ষিণে ও পূর্বে সম্প্রতি মুসলমান-ধর্মই বিশেষ প্রতিষ্ঠা লাভ করিয়াছে। ভারতবর্ষের প্রত্যেক জনাকীর্ণ সহরে এবং মুসলমান অধিকৃত প্রদেশ সমূহে মুসলমান ধর্ম যে ক্রমশঃ বদ্ধমূল হইয়া আধিপত্য বিস্তার করতেছে,— তাহা কোন মতেই অস্বীকার করিতে পারা যায় না। কিষ্টোয়ারের পূর্বদিকে হিমালয়ের নিম্নতর উপত্যক-সমূহের পরপারে বিজেতা রাজপুতগণ ব্রাহ্মণ্য ধর্ম প্রচার করিতে সমর্থ হয় নাই। কিন্তু অধিকতর বন্ত গহ্বরসমূহে,—যে স্থানের অজ্ঞান অধিবাসীগণ গ্রাম্য ও স্থানীয় দেবতা পূজা করিয়া থাকে,—সম্প্রতি বৌদ্ধগণ সেই দুৰ্গৰ স্থানসমূহেও অগ্রসর হইতে আরম্ভ করিয়াছে। যে সকল ছৰ্গম স্থানে এক পুরুষ পূর্বে কেহই যাইতে সাহসী হয় নাই, সেখানে লোহিত’ ও ‘গীত' সম্প্রদায়ের লামাগণ আধিপত্য স্থাপন করিয়াছে। ভারতীয় বন্ত জাতির মধ্যে ব্ৰাহ্মণগণের প্রতিপত্তি উত্তরোত্তর বৃদ্ধি হইতেছে। কি “ভাল, কি গও, কি ‘কোল,-প্রত্যেকই একটু ক্ষমতাশালী কিংবা ধনবান হইলেই মেচ্ছ অপেক্ষ বরং হিন্দু নামে অভিহিত হইতে