পাতা:শিখ-ইতিহাস.djvu/৯০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


প্রাচীন ভারতের ধর্মমত 8☾ যাহা দেখিতে পাই ও জানিতে পারি, তাহার অস্তিম জ্ঞান ও কারণস্বরূপ সত্য বা ঈশ্বর চিরকাল বর্তমান থাকিবে ।40 মোল্লা, পণ্ডিত, দরবেশ এবং সন্নাসী,—সকলকেই নানক সমভাবে শিক্ষা দিতেন । যিনি, অসংখ্য মহম্মদ, বিষ্ণু ও শিবের অবতার গ্রহণ এবং লয়প্রাপ্তি প্রত্যক্ষ করিয়াছেন, নানক সেই সর্বশক্তিমান, অনন্তকালস্থায়ী, অক্ষয়, অব্যয় ঈশ্বরের ঈশ্বরকে স্মরণ করিতে উপদেশ প্রদান করিয়াছিলেন ৭১ নানক বলিতেন, ‘পুণ্য, দয়া-দক্ষিণ, বীরোচিত কার্যকলাপ এবং জ্ঞানার্জন সকলই অমূলক। যে জ্ঞান অনন্তব্যাপী এবং অনন্তকালস্থায়ী,– তাহাই একমাত্র ঈশ্বরজ্ঞান ।”৪২ ৪• । দৃষ্টান্ত স্বরূপ, আদিগ্রন্থের ‘গৌরী রাগ নামক অংশ, এবং ‘জপ' নামক মুখবন্ধ (স্বচন ) অথবা ‘oto s of food est-safā ol āśs Compare also Wilkins, Asiatic Researches, i. 285, &c. ‘অকলপুরীক’ বা সময়াতীত সত্বা, শিখদিগের ঈশ্বর নামের একটি সাধারণ সংজ্ঞা । ইংরাজী ভাষার প্রচলিত ‘অলমাইট' (Almighty,—সর্বশক্তিমান ) শব্দের সহিত ইহার সাদৃপ্ত আছে। তথাপি গোবিন্দ দ্বিতীয় গ্রন্থের ‘হুজার শাবদ’ অংশে স্পষ্টই বলিয়াছেন যে, ‘সময়ই একমাত্র প্রকৃত এবং সত্য ঈশ্বর ; জগদীশ্বর প্রথমেও বর্তমান ছিলেন, প্রলয়কাল পর্যন্তও বিদ্যমান থাকিবেন : ঈশ্বর অসীম অনন্তু ইত্যাদি । মিলটন সময়ের সাময়িক এবং পরিমিত প্রয়োগ নির্দেশ করিয়াছেন । সেক্ষপিয়রও সময়ের একটি সীমা স্থির করিয়া দিয়াছেন ঃ– ‘কালগতি অনন্তের পথে প্রধাবিত। পার্থিব স্থায়িত্বে তার সীমা নিরূপিত ৷ বর্তমান, ভবিষ্কৃত, ভূত কালত্রয়। সান্তভাবে অনন্তের সীমা নিরূপয় ॥ “Milton, “Paradise Lost.” v.” “চিন্তাশক্তি জীবনের হর ক্রীতদাস । জীবন কালের করে পুতলী ক্রীড়ার । কালের জগৎ-গতি নির্ণয়ে প্রয়াস । একদিন অবগুই অবসান তার ॥ “Shakespeare, “Henry iv. Part First' v. 4.' ভারতবর্ষের আধুনিক দর্শন-শাস্ত্রাধ্যায়ী ধর্ম-সম্প্রদায়ের ‘সাংখ্য, পৌরাণিক এবং শৈব" নামক তিনটি শাখা আছে ; তাহাদের মতে, ‘কাল’ বা সময়, মানসিক এবং ভৌতিক জগতের যথাক্রমে ২৭, ৩• বা ৩৬টি সারসমষ্টি বা প্রপঞ্চ সমূহের একটি। এইরূপে সময়ের পৃথক কার্য অথবা স্বতন্ত্র সত্ব নির্দিষ্ট হইয় থাকে। ৪১। আদি-গ্রন্থের পরিশিষ্টে নানকের নিম্নলিখিত কবিতাটি পাওয়া যায়। কতকগুলি ধৰ্ম-প্রবর্তক, গুরু-সন্ন্যাসি দলের বিবরণের পর এই কবিতাটি লিখিত আছে – ‘छेवाब्रव्र छेवब्र शिनि, लिनिझे त्रेवब्र । সর্বশক্তিমানূ তিনি, তিনি পরাৎপর। হে নানক । ইহা তুমি জানিও নিশ্চয়। एअनखु ७८¥च्ने कडू थांब्र° न इब्र । ৪২। আদি-গ্রন্থের ‘জাশী’। Assa ) নামক অংশের শেষ ভাগ দ্রষ্টব্য।