পাতা:শিশু ভোলানাথ-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/৯২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পচানব্বই বছর বয়সে একটা মাছুষ ফস করে মারা গেল বলে চিকিৎসাশাস্ত্রটাকে ধিক্কার দেওয়া বৃথা বাক্যব্যয় । অতএব, কেউ যদি বলে আমার বয়স যতই বাড়ছে আমার আয়ু ততই কমে যাচ্ছে, তা হলে তাকে আমি নিন্দুক বলি নে, বড়ো জোর এই বলি যে, লোকটা বাজে কথা এমনভাবে বলে যেন সেটা দৈববাণী। কালক্রমে আমার ক্ষমত হ্রাস হয়ে যাচ্ছে, এই বিধিলিপি নিয়ে, যুবক হোক, বৃদ্ধ হোক, কবি ছোক, অকবি হোক, কারে সজে তকরার করার চেয়ে ততক্ষণ একটা গান লেখা ভালো মনে করি, তা সেটা পছন্দসই হোক আর ন; হোক । BBDDSBBS BB BBBB SB SBBBBSBB BBB BBBS DD লিখতে পারি, তা হলেও মনটা খুশি থাকে । ... •••ঐ ‘শিশু ভোলানাথ’এর কবিতাগুলো খামক কেন লিখতে বলেছিলুম। সেও লোকরঞ্জনের জন্তে নয়, নিতাস্ত নিজের গরজে । পূর্বেই বলেছি, কিছুকাল আমেরিকার প্রৌঢ়তার মরুপারে ঘোরতর কর্ষপটুতায় পাথরের দুর্গে আটকা পড়েছিলুম। সেদিন খুব স্পষ্ট বুঝেছিলুম্ব, জমিয়ে তোলবার মতে এত বড়ো মিথ্যে ব্যাপার জগতে জায় কিছুই নেই। এই জমাবার জমাদারটা বিশ্বের চিচেঞ্চলতাকে বাধা দেবার স্পখী করে ; কিন্তু কিছুই থাকবে না, আজ বাদে কাল সব লাফ হয়ে যাবে। যে স্রোতের ঘূশ্বিপাকে এক-এক জায়গায় এইসৰ বজয় পিণ্ডগুলোকে স্তৃপাকার করে দিয়ে গেছে, সেই স্রোতেরই জৰিয়ত বেগে ঠেলে ঠেলে সমস্ত ভাসিয়ে নীল সমুদ্রে নিয়ে যাবে— পৃথিবীর বক্ষ স্থস্থ হবে। পৃথিবীতে স্বটির যে লীলাশক্তি আছে সে-ধে নির্লোড, সে নিরাসক্ত, সে অকৃপণ ; সে কিছু জমতে দেম না, কেননা জমাৰ জৰালে ভার স্বাক্টর পথ আটকায় ; সে যে নিত্যনূতমের মির মুর প্রকাশের জন্তে তার অবকাশকে নির্মল করে রেখে দিতে চায় । লোভী Ե Ե»