পাতা:শোধবোধ-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


क्रिड्त्रीञ्च ट्-ब्] বিধুমুখী ও সতীশ সতীশ । মা, কোনোমতে টাকাটা পেযেছি, নেকলেসও নেলিব ওখানে পাঠিলে দিযেহি । কিন্তু বাবাব সেকালেব আমলেব সোনাব গুডওডিটা সিন্দূপেটিব মতি পালেব ওখানে যে বাধা রেখে এলুম, নিশ্চিন্ত হ’তে পাবচিনে । বিধুমুখী । তোব কোনো ভয় নেই, সতীশ । তিনি এ সব জিনিষেব পবে কোনো মমতাই বাখেন না। কেবল ওঁব ঠাকুবদাদাব জিনিষ বলেই আজ পয্যন্ত লোহাব সিন্দুকে ছিলো। এক দিনেব জন্তে খববও বাখেন নি। সেটা আছে কী গেছে, সে র্তাব মনেও নেই। সতীশ । সে আমি জানি। কিন্তু ভাবী ভষ হচ্ছে, যাবা বন্ধক রেখেছে, তাবা হয তো বাবাকে চিঠি লিখে খোজ ক’ববে। তুমি কোনো মতে তোমা গহনাপত্র দিযে সেটা খালাস কবে দাও । বিধুমুখী। হায়বে কপাল, গহনাপত্র কিছু কী বাকি আছে। সে কথা আবে জিজ্ঞাসা কবিসনে। যাই হোক, আমি ভয় কবিনে—প্রজাপতিব আশীৰ্ব্বাদে নলিনীব সঙ্গে আগে তোব কোনোমতে বিযে হযে যাক, তাব পবে তোব বাবা যা বলেন, যা করেন, সব সহ ক’বতে হবে । " কথাবার্তা কিছু এগিয়েচে ? সতীশ । সৰ্ব্বদা যে বকম লোক ঘিবে থাকে, কথা কবো কখন ? জানো তো সেই নদী-লে যেন বিলিতি কাটা গাছেৰ বেড়া। তার [ St