পাতা:শ্রীনরোত্তম চরিত - শিশিরকুমার ঘোষ.pdf/১২৩

উইকিসংকলন থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


N V খেতরিতে প্রত্যাবৰ্ত্তন। ও । ᏕᏕᎸ .

  • - বিরোধি শক্রগণকে কারাগারে বন্ধন দশায় রাখিয়াছিলেন, অন্ত ঠাকুর =

মহাশয় তাহাকে ও তাহার সমুদায় গোষ্ঠীকে, আর একরূপ বন্ধনে বন্ধন , । করিয়া শ্ৰীগৌরাঙ্গের সম্মুখে আনিলেন। আবার খেতরিতে প্ৰত্যহ উৎসব হইতে লাগিল। দিবানিশি |* কীৰ্ত্তন, দিবানিশি ভজন, দিবানিশি পুজা ও দিবানিশি আনন্দ । তৎ" | পরে চাঁদ রায়কে ঠাকুর মহাশয়ুবিদায় দিলেন এবং তিনি গৃহে প্রত্যগমন করিলেন। পূৰ্ব্বে বলিয়াছি, চাঁদ রায় মহাশয়-লোক। তিনি । গৃহে প্রত্যাগমন করিয়া বিষয় কাৰ্য অন্য হন্তে ন্যস্ত করিলেন। ইহাতে । অল্পকাল মধ্যে মুসলমানগণ কর্তৃক ধৃত্ হইলেন বাদাসা তীহাকে কারী: গারে পুরিলেন, আর তাহার অত্যন্ত ক্ৰোধ ছিল বলিয়া, প্ৰাণে বধ না | - করিয়া, যন্ত্রণা দিতে লাগিলেন। , চীদ রায়ের কতটুকু ভক্তি হইয়াছে, তাহার পরীক্ষার সময় আসিল। ভক্তিবীজ অঙ্কুরিত হইয়া যখন একটা বৃক্ষ হয়, তখন বিপদৰূপ ঝটিকায় হয়। উহাকে, উৎপাটন করে, না হয়। বদ্ধমূল করে। চাঁদ রায় ७है विश्राप्त ক্ৰক্ষেপও করিলেন না। তখন মুসলমান ধৰ্ম্মবেত্তাগণ পরামর্শ দিলেন যে, फ्रेंगा ब्रांबद्दक भूगनभांन ধৰ্ম্মে দীক্ষিত করা হউক, আর তাহাতে তিনি স্বীকৃত না হইলে, হস্তীর পদতলে ফেলিয়া প্ৰাণে বধ করা হউক । বলা বাহুল্য যে, চাঁদ রায় মুসলমান হইতে স্বীকৃত হইলেন না । , তখন চাঁদ রায়ের মৃত্যু দৰ্শন নিমিত্ত সভা হইল, ও মদ্যপানে মত্ত হস্তীও আনীত হইল। অতি দুর্বল চাঁদ রায় মলিনবেশ পরিধান করিয়া সভায় দাড়াইয়া আছেন। দুর্বল কেন,-না, অনাহারে ও যন্ত্রণায় । তখন बांगांश श्रांवांद्र বলিলেন, “দেখ, ঐ হস্তী প্ৰস্তুত। এখনও মুসলমান হও, নতুবা উহার পদতলে নিক্ষিপ্ত হইবে।” চাঁদ রায় বলিলেন, “ইহা অপেক্ষা আমার ভাগ্য। আর কি হইতে পারে ? শ্ৰীভগবানের নিমিত digitized at BRCIndia.com