পাতা:শ্রীশ্রীচণ্ডী-মহেন্দ্র নাথ মিত্র.djvu/১৬২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Ꮌ☾ চণ্ডী যিনি নিত্যা—এই বিশ্ব-ব্রহ্মাণ্ড র্যাহার আকার, যাহাতে এই বিশ্ব প্রতিষ্ঠিত, যিনি নিখিল জগৎ ব্যাপিয়া অবস্থিত, তাহার আবার উৎপত্তি কি ? এই উৎপত্তির অর্থ—বিশেষ-বিকাশ, দেব-কাৰ্য্য জন্ত বিশেষ আবির্ভাব বা অবতার। এই অবতারের কথা গীতাতেও আছে-- “যখনি ধৰ্ম্মের গ্লানি হয়, হে ভারত ! অধৰ্ম্মের অভু্যখান হয় যেই কালে,— সেই কালে করি আমি আমাকে স্বজন। সাধুজনপরিত্রাণ, দুষ্কত - নিধন করিবারে-করিবারে ধৰ্ম্ম - সংস্থাপন, যুগে যুগে করি আমি জনম গ্রহণ।” আমরা চওঁী হইতে দেখিতে পাই যে, যিনি মহামায়া--ধিনি বিষ্ণুর মহাশক্তি, তিনিই দেবকাৰ্য্য-সাধন জন্ত অবতীর্ণ হন বা উৎপন্ন হন। আর মানব-কাৰ্য্য-সাধন জন্ত—ধৰ্ম্ম-সংস্থাপন ও দুষ্কৃত-নিধন জন্য, স্বয়ং ভগবানই আপনাকে মায়া-বলে স্বজন করেন। --মানবের জয় হউক । সে যাহা হউক, আমরা চণ্ডীতে দেবীর এই বিশেষ আবির্ভাবের তিনটি বিবরণ দেখিতে পাই। এই তিন আবির্ভাবের উপাখ্যান দ্বারাই চণ্ডীর মাহাত্ম্য বুঝান হইয়াছে। চণ্ডীর প্রথম উপাখ্যান—মধুকৈটভ বধ। এই উপাখ্যানে স্বষ্টি বিবরণ বিবৃত श्हेब्रांट्राइ “প্রলয়ে জগত, করি একার্ণব, বিষ্ণু প্ৰভু ভগবান,