পাতা:শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণ কথামৃত পঞ্চম ভাগ.djvu/১০৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


আঠাশক্তির উপাসনাতেই ব্ৰহ্ম উপাসনা–ব্রহ্ম ও শক্তি অভেদ ৯১ কিছু পাঠ করছে। তা দেখেছি অৰ্দ্ধেক পাতা উলুটে যাবে।” ( সকলের হাস্ত ) ৷ “নিজের বধের জন্ত একটা নরুণেই হয়। পরকে মারতেই ঢাল তলোয়ার —শাস্ত্রাদি ।” “নানা শাস্ত্রেরও কিছু প্রয়োজন নাই। * যদি বিবেক না থাকে, শুধু পণ্ডিত্যে কিছু হয় না। ষট্টশাস্ত্র পড়লেও কিছু হয় না। নির্জনে গোপনে কেঁদে কেঁদে তাকে ডাক, তিনিই সব ক’রে দেবেন।” [ গোপনে সাধন—শুচিবাই ও ঈশান ] ঈশান ভাটপাড়ায় পুরশ্চরণ করিবার জন্ত গঙ্গাকূলে আটচালা বাধিতেছিলেন, এই কথা ঠাকুর শুনিয়াছেন। শ্রীরামকৃষ্ণ ( ব্যস্ত লইয়া, ঈশানের প্রতি )—হঁ্যাগ ঘর কি তৈয়াব হয়েছে। কি জান, ও সব কাজ লোকের খপরে যত না আসে ততই ভাণ যারা সত্ত্বগুণী, তারা ধান করে মনে, কোণে, বনে ; কখনও মশা"ি ভিতর ধ্যান করে । হাজরা মহাশয়কে ঈশান মাঝে মাঝে ভাটপাড়ায় লইয়া যান। হাজর মহাশয় শুচিবায়ের দ্যায় আচার করেন । ঠাকুর শ্রীরামকৃষ্ণ র্তাকে ও: করিতে বারণ করিয়াছিলেন । শ্রীরামকৃষ্ণ ( ঈশানের প্রতি )—আর দেখ, বেশী আচার ক’রে না । একজন সাধুর বড় জলতৃষ্ণা পেয়েছে, ভিস্তি জল নিয়ে যাচ্ছিল সাধুকে জল দিতে চাইলে । সাধু বললে, তোমার ডোল + ( চামড়ার মোশক )

  • উত্তম তত্ত্বাচস্তৈব-মধ্যমং শাস্ত্রচিন্তনম্। অধম মন্ত্রচিন্তা চ তীর্থচিন্ত্যধমাধম । —মৈত্রেয়ী উপনিষৎ—২,২১

† নবদ্বারমলস্রাবং সদাকালে স্বভাবজম্। দুৰ্গন্ধং কুৰ্ম্মলোপেতং পৃষ্ট স্নানং বিধীয়তে । —মৈত্ৰেয়ী উপনিষৎ