পাতা:শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণ কথামৃত পঞ্চম ভাগ.djvu/১২৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


$$రి শ্ৰীশ্ৰীরামকৃষ্ণকথামৃত—৫ম ভাগ [ ১৮৮৩, ১০ই অক্টোবর তখন কত কম হোয়ে গেল। আবার সেটি বদলে যদি একটু হীরা কর তাহলে লোকে টেরই পায় না।”* গলায় মালা আচার প্রভৃতি না থাকলে বৈষ্ণবের নিন্দ করেন। তাই কি ঠাকুর বলিতেছেন যে ঈশ্বর দর্শনের পর মালা ভেক এ সবের আঁট তত থাকে না ? বস্তলাভ হলে বাহিরের কৰ্ম্ম কমে যায় । ত্রীরামকৃষ্ণ (বলরামের পিতার প্রতি)—কৰ্ত্তাভজার বলে প্রবর্তক, সাধক, সিদ্ধ, সিদ্ধের সিদ্ধ। প্রবর্তক ফোটা কাটে, গলায় মালা রাখে, আর আচারী। সাধক—তাদের অত বাহিরের আড়ম্বর থাকে না, যেমন বাউল। সিদ্ধ—যার ঠিক বিশ্বাস যে ঈশ্বর আছেন। সিদ্ধের সিদ্ধ যেমন চৈতন্ত দেব। ঈশ্বরকে দর্শন কোরেছেন আর সর্বদা কথা বাৰ্ত্ত আলাপ । সিদ্ধের সিদ্ধকেই ওরা সাই বলে। সাইয়ের পর আর নাই।’ [ বলরামের পিতাকে শিক্ষা-সাত্ত্বিক সাধনা, সব ধৰ্ম্মের সমন্বয় ও গোড়ামী ত্যাগ করা ]

  • সাধক নানা রকম। সাত্ত্বিক সাধনা গোপনে, সাধক সাধন ভজন গোপন করে ; দেখলে প্রাকৃত লোকের মত বোধ হয় ; মশারীর ভিতর ধ্যান করে।”

“রাজসিক সাধক বাহিরের আড়ম্বর রাখে, গলায় জপের মালা, ভেক, গেরুয়া, গরদের কাপড়, সোনার দানা দেওয়া জপের মালা। যেমন সাইন বোর্ড মেরে বসা ।” । বৈষ্ণব ভক্তদের বেদান্ত মতের অথবা শক্তি মতের উপর তত শ্রদ্ধা নাই । বলরামের পিতা মহাশয়কে ঐরুপ সঙ্কীর্ণ ভাব পরিত্যাগ করিতে ঠাকুর উপদেশ দিতেছেন। ঐরামকৃষ্ণ (বলরামের পিতা প্রভৃতির প্রতি )—যে ধৰ্ম্মই হোক, যে মতই হোক ; সকলেই সেই এক ঈশ্বরকে ডাকছে ; তাই কোন ধৰ্ম্ম কোন মতকে

  • A merchantman sold all, wound up his business, and bought a pearl of great price—Bible, cf. St. Mathew 13-45,46

همونها منهم شحيحد مع عسكراتيجيتبعيته