পাতা:শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণ কথামৃত পঞ্চম ভাগ.djvu/১৪৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


দক্ষিণেশ্বর-নিরাকার সাধনা ও শ্রীরামকৃষ্ণ ծ Հֆ “প্রাচীরের ওপারে অনন্ত মাঠ। চারজন বন্ধু প্রাচীরের ওপারে কি আছে দেখতে চেষ্টা করলে। এক একজন প্রাচীরের উপরে ওঠে, ঐ মাঠ দর্শন করে” হা হা করে হেসে অপর পারে পড়ে যেতে লাগল। তিনজন কোন খবর দিলে না। একজন শুধু খবর দিলে। তার ব্ৰহ্মজ্ঞানের পরও শরীর রইল, লোক শিক্ষার জন্ত । যেমন অবতার আদির।” “হিমালয়ের ঘরে পাৰ্ব্বতী জন্মগ্রহণ করলেন ; আর পিতাকে তার নানান রূপ দেখাতে লাগলেন। হিমালয় বললেন, মা এসব রূপ ত দেখলাম। কিন্তু তোমার একটী ব্রহ্মস্বরূপ আছে—সেইটী একবার দেখাও। পাৰ্ব্বতী বললেন, বাবা তুমি যদি ব্ৰহ্মজ্ঞান চাও, তা হ’লে সংসার ত্যাগ করে সাধুসঙ্গ করতে হবে ।”

  • হিমালয় কোনমতে ছাড়েন না। তখন পাৰ্ব্বতী একবার দেখালেন । দেখতেই গিরিরাজ একবারে মুছিত।”

[ ত্রীরামকৃষ্ণ ও ভক্তিযোগ ] 曹 স্ত্রীরামকৃষ্ণ–এ যা বললুম সব বিচারের কথা। ব্ৰহ্ম সত্য জগৎ মিথ্যা এই বিচার। সব স্বপ্লবৎ। বড় কঠিন পথ। এ পথে তার লীলা স্বপ্লবৎ, মিথ্য হয়ে যায়। আবার ‘আমি’টাও উড়ে যায়। এ পথে অবতারও মানে না। # বড় কঠিন। এ সব বিচারের কথা ভক্তদের বেশী শুনতে নাই। * , “তাই ঈশ্বর অবতীর্ণ হয়ে ভক্তির উপদেশ দেন—শরণাগত হ’তে বলেন । ভক্তি থেকে তার কৃপায় সব হয়—জ্ঞান বিজ্ঞান সব হয় । *তিনি লীলা করেছেন—তিনি ভক্তের অধীন।” ‘কোন কালের ভক্তিডোরে আপনি স্যাম ব;ধা আছে !” “কখনো ঈশ্বর চুম্বক হন, ভক্ত ছুচ হয়। আবার কখনো তক্ত চুম্বক হয়, তিনি ছুচ হন। ভক্ত তাকে টেনে লয়—তিনি ভক্তবৎসল, ভক্তাধীন।” “এক মতে আছে যশোদাদি গোপীগণ পূৰ্ব্বজন্মে নিরাকারবাদী ছিলেন গল তাদের তাতে তৃপ্তি হয় নাই। বৃন্দাবন লীলায় তাই ঐকৃষ্ণকে ল. আনন্দ। প্রকৃষ্ণ একদিন বললেন, তোমাদের নিত্যধাম দর্শন করাবে, এ. 。ー・総電