পাতা:শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণ কথামৃত পঞ্চম ভাগ.djvu/১৬৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


義>8br শ্ৰীশ্রীরামকৃষ্ণ কথামৃত—৫ম ভাগ [ ১৮৮৪, মার্চ ৯ “মা কালীর মন্দিরে যখন বাজ পড়েছিল, তখন দেখেছিলাম, স্কুর মুখ উড়ে গেছে ।” “যিনি ঈশ্বর দর্শন করেছেন, তার দ্বারা আর ছেলেমেয়ে জন্ম দেওয়া, স্বষ্টির কাজ হয় না। ধান পুতলে গাছ হয়, কিন্তু ধান সিদ্ধ করে পুতলে গাছ হয় না।” “যিনি ঈশ্বর দর্শন করেছেন, তার ‘আমি’ট’ নামমাত্র থাকে ; সে ‘আমি’র দ্বারা কোন অন্তায় কাজ হয় না । নাম মাত্র থাকে—যেমন নারিকেলের বেল্লেীর দাগ । বেল্লো ঝরে গেছে—এখন কেবল দাগ মাত্র ।” [ ঈশ্বর দর্শনের পর ‘আমি’—শ্রীরামকৃষ্ণ ও ৮কেশব সেন ] শ্রীরামকৃষ্ণ ( ভক্তদের প্রতি )—আমি কেশব সেনকে বললাম, “আমি” ত্যাগ করো—আমি কৰ্ত্তা--আমি লোককে শিক্ষা দিচ্ছি । কেশব বললে, “মহাশয়, তাহ’লে দল টল থাকে না।” আমি বললাম, ‘বজগৎ আমি ত্যাগ কর ।” “ঈশ্বরের দাস আমি, ঈশ্বরের ভক্ত আমি ত্যাগ করতে হবে না। ‘বজ্জগৎ আমি আছে ব’লে “ঈশ্বরের আমি’ থাকে না।” “ভাড়ারি একজন থাকলে বাড়ীর কৰ্ত্তা ভাড়ারের ভার লয় না।” [ শ্রীরামকৃষ্ণ—মচুন্যলীলা ও অবতার তত্ত্ব ] শ্রীরামকৃষ্ণ ( ভক্তদের প্রতি )—দ্যাথো, এই হাতে লাগার দরুণ আমার স্বভাব উলুটে যাচ্ছে। এখন মামুনের ভিতর ঈশ্বরের বেশী প্রকাশ দেখিয়ে দিচ্ছে। যেন বলছে—আমি মানুষের ভিতর রইচি, তুমি মানুষ নিয়ে আনন্দ কর । “তিনি শুদ্ধ ভক্তের ভিতর বেশী প্রকাশ—তাই নরেন্দ্র, রাখাল এদের জন্ত এত ব্যাকুল হই ।” “জলাশয়ের কিনারায় ছোট ছোট গৰ্ত্ত থাকে, সেইখানে মাছ, কাকড়া এসে জমে, তেমনি মানুষের ভিতর ঈশ্বরের প্রকাশ বেশী।” “এমন আছে যে শালগ্রাম হ’তেও বড় মাছুষ । নরনারায়ণ ।