পাতা:শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণ কথামৃত পঞ্চম ভাগ.djvu/১৬৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


} @ 8 শ্ৰীশ্রীরামকৃষ্ণ কথামৃত—৫ম ভাগ [ ১৮৮৪, মে ২৪ ঈশ্বর দর্শনের কথা লোককে বোঝান যায় না। পাঁচ বৎসরের বালককে স্বামী স্ত্রীর মিলনের আনন্দের কথা বোঝান যায় না।” বিদ্যা ( শ্রীরামকৃষ্ণ প্রতি )—আজ্ঞে, আত্মদর্শন কি উপায়ে হতে পারে। [ রাখালের প্রতি শ্রীরামকৃষ্ণের গোপাল ভাব । এই সময়ে রাখাল ঘরের মধ্যে আহার করিতে বসিতেছেন। কিন্তু অনেকে ঘরে আছেন বলিয়া ইতস্ততঃ করিতেছেন। ঠাকুর আজকাল রাখালকে গোপালের ভাবে পালন করিতেছেন ; ঠিক যেমন মা যশোদার বাৎসল্য ভাব ! শ্রীরামকৃষ্ণ ( রাখালের প্রতি )—খা না রে! এর না হয় উঠে দাড়াক্ । ( একজন ভক্তপ্রতি ) রাখালের জন্য বরফ রাখো । ( রাখালের প্রতি ) বমূহুগলি তুই আবার যাবি ? রৌদ্রে যাস নি। রাখাল আহার করিতে বসিলেন। ঠাকুর আবার বিদ্যা-অভিনেতা যাত্রাওয়ালা ছোকরাটীর সঙ্গে কথা কহিতেছেন। শ্রীরামকৃষ্ণ (বিদ্যার প্রতি )—তোমরা সকলে ঠাকুরবাড়ীতে প্রসাদ পেলে না কেন ? এখানে খেলেই হ’তো । বিদ্যা—আজ্ঞা, সবাইয়ের মত ত সমান নয়, তাই আলাদা রান্নাবাড় হচ্ছে । সকলে অতিথিশালায় খেতে চায় না । রাখাল খাইতে বসিয়াছেন । ঠাকুর ভক্ত সঙ্গে বারানায় বসিয়া আবার কথা কহিতেছেন ।