পাতা:শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণ কথামৃত পঞ্চম ভাগ.djvu/২০৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ఏఏo শ্ৰীহীরামকৃষ্ণ কথামৃত—৫ম ভাগ [ ১৮৮৫, ১৭শ খণ্ড [ গিরীশ ও “আমি আমার” ] কনসার্ট থামিয়া গেলে শ্রীরামকৃষ্ণ আবার কথা কহিতেছেন। গ্রীরামকৃষ্ণ (গিরীশের প্রতি )—একি তোমার থিয়েটার, না তোমাদের ? গিরীশ–আজ্ঞা, আমাদের । শ্ৰীরামকৃষ্ণ—আমাদের কথাটাই ভাল ; আমার বলা ভাল নয়! কেউ কেউ বলে আমি নিজেই এসেছি ; এ সব হীনবুদ্ধি অহঙ্কেরে লোকে বলে। [ শ্রীরামকৃষ্ণ নরেন্দ্র প্রভৃতি সঙ্গে ] নরেন্দ্ৰ—সবই থিয়েটার। শ্রীরামকৃষ্ণ—ই ই ঠিক। তবে কোথায় বিদ্যার কোথাও অবিদ্যার খেলা । নরেন্দ্ৰ—সবই বিদ্যার । শ্রীরামকৃষ্ণ—ই ই ; তবে উট ব্রহ্ম জ্ঞানে হয়। ভক্তি ভক্তের পক্ষে দুইই আছে ; বিদ্যা মায়া, অবিদ্যা মায়া । ত্রীরামকৃষ্ণ—তুই একটু গান গা । নরেন্দ্র গান গাহিতেছেন— চিদানন্দ সিন্ধুনীরে প্রেমানন্দ লহরী। মহাভাব রাসলীলা কি মাধুরী মরি মরি। বিবিধ বিলাস রঙ্গ প্রসঙ্গ, কত অভিনব ভাবতরঙ্গ, ডুবিছে উঠিছে করিছে রঙ্গ নবীন নবীন রূপ ধরি। (হরি হরি ব’লে ) মহাযোগে সমুদায় একাকার হইল, দেশ, কাল, ব্যবধান, ভেদাভেদ ঘুচিল ( আশা পুরিল রে,— আমার সকল সাধ মিটে গেল ) এখন আনন্দে মাতিয়া দুবাহু তুলিয়া বলরে মন হরি হরি। নরেন্দ্র যখন গাহিতেছেন, মহাঘোগে সব একাকার ছাঁ তখন ত্রীরামকৃষ্ণ বলিতেছেন, এটী ব্ৰহ্মজ্ঞানে হয় ; তুই যা বলছিলি সবই বিদ্যা। নরেন্দ্র যখন গাহিতেছেন, ‘আননে মাতিয়া দুবাহু তুলিয়া বলরে মন হরি হরি, তখন ত্রীরামকৃষ্ণ নরেন্দ্রকে বলিতেছেন, ঐট দুবার করে বলু।