পাতা:শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণ কথামৃত পঞ্চম ভাগ.djvu/২৩১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


R১৬ শ্ৰীশ্রীরামকৃষ্ণ কথামৃত—৫ম ভাগ [ পরিশিষ্ট

  • সৰ্ব্বং বস্তু ভয়াম্বিতং ভুবি নৃণাং বৈরাগ্যমেবাভয়ম্।”

Everything in this life is fraught with fear. It is renunciation that makes one fearless.” “এখানে আসিলে আর সাম্প্রদায়িক ভাব থাকে না, ধৰ্ম্ম লইয়া ঝগড়াবিবাদ কোথায় পলাইয়া যায়। কেবল একটি মহান সত্যের ধারণা হয়— ঈশ্বরদর্শনই সত্য, আর যাহা কিছু জলের ফেনার ন্যায়—ভগবানের পূজাই এক-মাত্র জীবনে প্রয়োজন, আর সকলই মিথ্যা।” “ঈশ্বরই বস্তু, আর সব অবস্তু। অথবা মধুকর পদ্মের উপর বসিতে পাইলে আর ভন্‌ ভন্‌ করে না !” ‘Strong souls will be attracted to this Father of Mountains in time to come, when all this fight between sects and all those differances in dogmas will not be reinembered any more, and quarrel between your religion and my religion will have vanished altogether, when manlind will understand that there is but one Eternal religion and that is the perception of the Divine within and the rest is mere froth I Such ardent souls will come here, knowing that the world is but Vanity, knowing that everything is useless except the worship of the Lord and the Lord alone."— [Speech at Almora. ঠাকুর শ্রীরামকৃষ্ণ বলিতেন, অদ্বৈতজ্ঞান আঁচলে বাধিয়া যেখানে ইচ্ছা য়াও ! স্বামী বিবেকানন্দ অদ্বৈতজ্ঞান আঁচলে বাধিয়া কৰ্ম্মক্ষেত্রে অবতরণ করিয়ছিলেন। সন্ন্যাসার গুহ, ধন, পরিজন, আত্মীয়, কুটুম্ব, স্বদেশ, বিদেশ আবার কি ? যাজ্ঞবল্ক্য মৈত্রেয়ীকে বলিলেন, ঈশ্বরকে না জানলে এ সব ধন, বিদ্যা কি হবে ? হে মৈত্রেয়ী, আগে তাকে জান, তারপর অন্ত কথা। স্বামী এইটি জগৎকে দেখাইলেন। তিনি যেন বলিলেন, হে জগদবাসীগণ, আগে বিষয় ত্যাগ করিয়া নির্জনে ভগবানের আরাধনা কর, তাহার পর যাহা ইচ্ছা কর, কিছুতেই দোষ নাই ; স্বদেশের সেবা কর ; ইচ্ছা হয় কুটুম্ব পালন কর, কিছুতেই দোষ নাই ; কেন না, তুমি যখন বুঝিতেছ যে সৰ্ব্বভূতে তিনি আছেন