পাতা:শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণ কথামৃত পঞ্চম ভাগ.djvu/২৯৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শ্রীরামকৃষ্ণ মনোমোহন মন্দিরে २११

  • ৰ্তার কি ইচ্ছা মায়াতে জানতে দেয় না। তার মায়াতে অনিত্যকে নিত্য বোধ হয়, আবার নিত্যকে অনিত্য বোধ হয়। সংসার অনিত্য,—এই আছে এই নাই, কিন্তু তার মায়াতে বোধ হয়, এই ঠিক। তার মায়াতেই আমি কর্তা বোধ হয় ; আর আমার এই সব স্ত্রী-পুত্র, ভাই-ভগিনী, বাপ-মা, বাড়ী ঘর –এই সব আমার বোধ হয়।

“মায়াতে বিদ্যা অবিদ্যা দুই আছে। অবিদ্যার সংসার ভুলিয়ে দেয় ; আর বিদ্যামায়া—জ্ঞান, ভক্তি, সাধুসঙ্গ—ঈশ্বরের দিকে লয়ে যায়।” "র্তার কৃপায় যিনি মায়ার অতীত, তার পক্ষে সব সমান—বিদ্যা অবিদ্যা সব সমান।”

  • সংসার আশ্রম ভোগের আশ্রম। আর কামিনী কাঞ্চন ভোগ কি আর করবে ? সনেশ গলা থেকে নেমে গেলে টক কি মিষ্টি মনে থাকে না ।”

তবে সকলে কেন ত্যাগ করবে ? সময় না হলে কি ত্যাগ হয় ? ভোগাস্ত হয়ে গেলে তবে ত্যাগের সময় হয়। জোর করে কেউ ত্যাগ করতে পারে? “এক রকম বৈরাগ্য আছে, তাকে বলে মৰ্কট বৈরাগ্য, হীনবুদ্ধি লোকের ঐ বৈরাগ্য হয়। রাড়পুতি (বিধবার ছেলে), মা মুতা কেটে খায়—ছেলের একটু কাজ ছিল, সে কাজ গেছে—তখন বৈরাগ্য হল, গেরুয়া পরলে, কাশী চলে গেল। আবার কিছুদিন পরে পত্র লিখছে—আমার একটি কৰ্ম্ম হইয়াছে, দশ টাকা মাছিনা। ওরি ভিতর সোনার আংটি আর জাম-জোড়া কেনবার চেষ্টা করছে। ভোগের ইচ্ছা যাবে কোথায় ?