পাতা:শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণ কথামৃত পঞ্চম ভাগ.djvu/২৯৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


দ্বিতীয় পরিচ্ছেদ ব্রাহ্ম ভক্তগণ সঙ্গে কেশব আসিয়াছেন। শ্রীরামকৃষ্ণ প্রাঙ্গণে বসিয়া আছেন। কেশব আসিয়া অতি ভক্তিভাবে প্রণাম করিলেন। ঠাকুরের বামদিকে কেশব বসিলেন আর দক্ষিণদিকে রাম উপবিষ্ট । কিয়ৎকাল ভাগবত পাঠ হইতে লাগিল । পাঠাস্তে ঠাকুর কথা কহিতেছেন। প্রাঙ্গণের চতুৰ্দ্ধিকে গৃহস্থ ভক্তগণ বসিয়া আছেন। [. ঐরামকৃষ্ণ (ভক্তদের প্রতি )–সংসারের কৰ্ম্ম বড় কঠিন ; বল্ বম্ করে ঘুরলে মাথা ঘুরে যেমন অজ্ঞান হয়ে পড়ে। তবে খুটি ধরে ঘুরলে আর ভয় নাই। কৰ্ম্ম কর কিন্তু ঈশ্বরকে ভুল না। “যদি বল, যেকালে এত কঠিন ? উপায় কি ? উপায় অভ্যাসযোগ। ওদেশে ছুতোরদের মেয়ের দেখেছি, তারা একদিকে চিড়ে কুটছে, ঢেকি পড়বার ভয় আছে হাতে ; আবার ছেলেকে মাই দিচ্ছে ; আবার খরিদ্ধারদের সঙ্গে কথা কইছে ; বলছে—তোমার যা পাওনা আছে দিয়ে যেও।”

  • নষ্ট মেয়ে সংসারের সব কাজ করে, কিন্তু সৰ্ব্বদা উপপতির দিকে মন পড়ে

থাকে ৷” “তবে এটুকু হবার জন্য একটু সাধন চাই। মাঝে মাঝে নির্জনে গিয়ে তাকে ডাকতে হয়। ভক্তি লাভ করে কৰ্ম্ম করা যায়। শুধু হাতে কাঠাল ভাঙ্গলে হাতে আঠা লাগবে—হাতে তেল মেখে কাঠাল ভাঙ্গলে আর আঠা লাগবে না।” এইবার প্রাঙ্গণে গান হইতেছে। ক্রমে ঐযুক্ত ত্ৰৈলোক্যও গান গাহিতেছেন— জয় জয় আনন্দময়ী ব্ৰহ্মরূপিণী ।