পাতা:শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণ কথামৃত পঞ্চম ভাগ.djvu/৭৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চতুর্থ পরিচ্ছেদ (বলঘরের ভক্তসঙ্গে বেলঘর হইতে গোবিন্দ মুখোপাধ্যায় প্রমুখ ভক্তেরা আসিয়াছেন। ঠাকুর যেদিন র্তাহার বাটীতে শুভাগমন করিয়াছিলেন, সে দিন গায়কের ‘জাগো, জাগে, জননী’ এই গান শুনিয়া সমাধিস্থ হইয়া ছিলেন। গোবিন্দ সেই গায়কটকেও আনিয়াছেন। ঠাকুর গায়ককে দেখিয়া আনন্দিত হইয়াছেন। ও বলিতেছেন, তুমি কিছু গান কর। গায়ক গাইতেছেন— ১ । দোষ কারু নয় গো মা, আমি স্বখাত সলিলে ডুবে মরি খামা। ২। ছুসনা রেশমন আমার জাত গিয়েছে। যদি বলিস ওরে শমন জাত গেল কিসে, কেলে সৰ্ব্বনাশী আমায় সন্ন্যাসী করেছে। ৩। জাগ জাগ জননী ( রাগিনী মুলতান ) মূলাধারে নিদ্রাগত কতদিন গত হল কুল কুণ্ডলিনী। স্বকাৰ্য্য সাধনে চল মা শির মধ্যে, পরম শিব যথা সহস্রদল পদ্মে, করি ষড়চক্র ভেদ ঘুচাও মনের খেদ, চৈতন্তরূপিণী । স্ত্রীরামকৃষ্ণ–এই গানে ষড়চক্র ভেদের কথা আছে। ঈশ্বর বাহিরেও আছেন, অস্তরেও আছেন। তিনি ভিতরে থেকে মনের নানা অবস্থা করছেন। ষড়চক্র ভেদ হলে মায়ার রাজ্য ছাড়িয়ে জীবাত্মা পরমাত্মার সঙ্গে এক হয়ে যায়। এরই নাম ঈশ্বর দর্শন। “মায়া দ্বার ছেড়ে না দিলে ঈশ্বর দর্শন হয় না। রাম, লক্ষ্মণ, আর সীতা একসঙ্গে যাচ্ছেন ; সকলের আগে রাম, মধ্যে সীতা, পশ্চাতে লক্ষ্মণ। যেমন সীতা মাঝে থাকাতে—লক্ষ্মণ রামকে দেখতে পাচ্ছেন না, তেমনি মাঝে