পাতা:শ্রীশ্রীহরি লীলামৃত.djvu/১৩৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


১২৪ ৷ বলে ওহে মহাপ্রভু হইয়াছে ভাল । বাড়ী পুড়ে গেছে এবে লক্ষ্মীপুরচল। লক্ষ্মীকান্ত চল যাই লক্ষ্মীপুর গ্রাম। পরম আনন্দে সর্বে ল’ব হরিনাম ॥ পেড়ে। বাড়ী শীতল করিতে কেহ নাই । সেজন্য তোমাকে নিতে আসি দুটিভাই ॥ চল চল মহাপ্রভু ল’য়ে দল বল । কৃপাবারী সিঞ্চনে করুণ সুশীতল ॥ শুনি মহাপ্রভু আর বিলম্ব ন কৈল ॥____| লক্ষ্মীপুর গ্রামে হরি উপনীত হৈল ॥ ঠাকুরেকে লয়ে বাড়ী যায় দুটিভাই। বলে হরি বলরে সুখের সীমা নাই ॥ " প্ৰভু সেবা সুশ্রুষাদি করে ভাল মতে । পাচসিক প্রাণামী দিলেন ঐ পদেতে । এক জোড়া নববস্ত্র অনিয়া ঠখন। আদরে চাদর'ধূতি করিল অর্পন। প্রেমানন্দে ভাসে নাই সুখের অবধি । প্রভুকে রাখিয় এল ক্ষেত্র ওঢ়াকাদি । বিংশ জন ভক্ত ছিল মহাপ্রভু সঙ্গে। আসিতে যাইতে নাম করে নানা রঙ্গে ॥ শ্ৰীহরির কৃপাদৃষ্টি যাহার উপর। সংসারের চিন্তা আর থাকেন তাহার ॥ আদেশ করিল প্রভু ভক্তগণ প্রতি। সকলে করহ দয়া বুধকে সংপ্ৰতি ॥ বুধইর বাটী পূৰ্ব্বে যত ঘর ছিল । ঠাকুর কৃপায়;তার দ্বিগুণ বাড়িল ॥ পোড়া ধান্য অবশেষে” যাহা কিছু ছিল। তাহাতে সংসার ব্যয় স্বচ্ছন্দে চলিল ॥ তারক পারক হেতু দয়িত পাগল। কবি কহে হরি বল যাবে ভব গোল ॥ মহানন্দ চিদানন্দ গ্রন্থ বিরচিত। ভুলোক আলোক শ্ৰীগোলোক পুলকিত । বুদ্ধিমন্ত বৈরাগীর চরিত্র কথন। পয়ার - পাগলের বরেতে সাহসে করি ভর। তার এক প্রস্তাব লিখিব অতঃপর ॥ বুদ্ধিমন্ত বৈরাগীর চরিত্র পবিত্র। রচনা করিতে মম শক্তি নাই তত্র।

  • .

&র উপর দিয়া পথ । সেপথে lo খে বেগুণের ক্ষেত ॥ একেত কীৰ্ত্তিক মীম কুঠির উপরে। নীল গাঁজা খড়ি পোড়ইত যথাকারে। বহু দিন পচে পচে মাটী হ’ল সার। নূতন বেগুণ গাছ তাহার উপর ॥ ধ'রেছে বেগুণ মাত্র-তোল নাহি আর । নূতন বেগুণ সব দেখিতে সুন্দর ॥------- বুনো জাতি তার ক্ষেত করিয়াছে ভাল । নব নব বেগুণে করেছে ক্ষেত আলো ॥ দেখি দুই তিন বন্দে বেগুণ উত্তম । তার মধ্যে এক বন্দ অতি মনোরম ৷ বুনো জাতি নাম তার বুধই সর্দার । তাহার বেগুণ ক্ষেত বড়ই সুন্দর ॥ বুদ্ধিমন্ত তাহ দেখি ন পারে রহিতে । যেন কত দায়, নারে সুস্থির হইতে ॥ হইল তাহার মনে এ ভাব উদয়। এ বেগুণ লাগাইব প্রভুর সেবায় ॥ বাট গিয়া বড়সী দিয়া কই মাছ মারী। সেই মাছ আর এই বেগুণ তরকারী ॥ লক্ষ্মীমাত করে যদি ব্যঞ্জন রন্ধন । জগন্নাথ খেলে মম সফল জীবন ॥ কেমনে বেগুণ নিব অস্থির ভাবিয়া । হেনকালে এক নারী উপস্থিত গিয়া ॥ বুদ্ধই তাহাকে বলে শুন ওগো মাত । কাহার বেগুণ এই জান সেই কথা ॥ নারী বলে জানি আমি বাৰ্ত্তাকার বার্তা । বুধই বুনোর ক্ষেত আছে তার মাত ॥ অই দেখা যায় সেই বুধইর বাড়ী। বুধই বাড়ীতে নাই বাড়া আছে বুড়ী ॥ বাৰ্ত্ত শুনি বুদ্ধিমন্ত চলে গেল তথা । যথায় বসিয়া আছে বুধইর মাত ॥ বুড়ীর চরণে গিয়া করিল প্রণাম। বলে মাত মোর হয় বুদ্ধিমন্ত নাম ॥ " তব ছেলে বুদ্ধিমন্ত আমিও বুদ্ধই । আমি তব ছেলে মোর মিতা গেছে কই । মিতা বুঝি বাড়ী নাই খেতে কিবা আছে । শীঘ্ৰ মোরে খেতে দেও ক্ষুধা হইয়াছে।