পাতা:শ্রীশ্রীহরি লীলামৃত.djvu/১৩৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


م: tos SAASAASAASAASAASAASAASAASAAAS অক্রুর বালার ভাৰ্য্যা শুনে চমকিত। অামি কি করিব পাক ভয় হই ভীত ॥ ভয় ভীতা শ্রদ্ধাম্বিত ভক্তির সহিতে। পাক করি ঠাকুরে বলিল ষোড় হাতে ॥ সেবায় বসিল প্রভু ভক্তগণ ল’য়ে। প্রেমানন্দে বুদ্ধিমন্ত বেড়ায় নাচিয়ে। স্ত্রীর সঙ্গে অক্রুর করে পরিবেশন। ভক্ত সঙ্গে মহাপ্রভু করেন ভোজন ॥ ভোজনান্তে মহাপ্রভু করে আচমন। সভা করি বসিলেন ল’য়ে ভক্তগণ ॥ " গিরিকীর্তনীয়া আর মথুর দুজনে। গোবিন্দ মতুয়া আদি-ব্রালারা সুগণে ॥ শ্রীরাম সুন্দর আর গুরুচাঁদ ঢালি। ঠাকুর নিকটে সুখে বসিল সকলি ॥ । পাকের প্রসংস৷ আর মৎস্য বেগুণ। ভোজনান্তে সবে প্রকাশিছে তার গুঞ্জ সুন্দর বেগুণ অীর মৎস্যের আস্বাদ । হয় নাই হবে নাই এমন স্বস্বাদ । ঠাকুর জিজ্ঞাসা করে বুদ্ধিমন্ত ঠাই। এ বেগুণ কোথায় পাইলে বল তাই ॥ বুদ্ধিমন্ত আদ্যোপান্ত_কহে বিবরণ। ’ শুনে লোমাঞ্চিত সব ভকতের গণ ॥ কেহ কেহ কঁদে প্রেমে গদ গদ হ’য়ে। কেহ কঁাদে ঠাকুরের চরণে পড়িয়ে ॥ z ". কেহ কেহ কঁদে প্রেমে গড়াগড়ি দিয়ে। প্রেমের বন্যায় সবে চলিল ভাসিয়ে ॥ . কেহ কেহ বুদ্ধিমন্তে ধরে দেয় কোল। স্পেমাস্ট্রট শব্দে কেহ বলে হরিবোল। অই প্রেমে উঠে গেল কীৰ্ত্তনের ধ্বনী। প্রেমের তরঙ্গে ভাসে ভক্ত শিরোমণি ॥ নাহি লোক নিন্দ ভয় অলৌকিক কাজ । রচিল তারক চন্দ্র কবি রসরাজ ॥ , মাচকাদি গ্রামে প্রভুর গমন ॥ পয়ার- , মাচর্কাদি গ্রামে শ্ৰীশঙ্কর বালা নাম ॥ পঞ্চ পুত্র তাহার সকলে গুণ ধাম— লক্ষ্মীদেবী গর্ভ জাত তারা পঞ্চভাই। যেমন পাণ্ডব পঞ্চ ঠিক যেন তাই ॥ سحمہمہ یہ ممبہمہمہ، برہم برعیہی ,,-م۔م۔م۔م۔م۔ জেষ্ঠ ভ্রউদয় চন্দ্ৰ ভাৰ্য্য গুণমণি। मदाम औछप्लकैंiल धनन्छ। व्रगनौ ॥ নোয়ী হরানন্দ বাল\নারী রসবতী । সেজে রামকুমার o: সতী ॥ কনিষ্ঠ শ্ৰীব্ৰজনাথ বালNণষ্টাচারী। তাহার গৃহিনী দেবী বসন্তকুমারী। তিলছড়া বংশী গান তাহারভুহিত । . সাধী সতী পতি ব্রত রূপ গুণম্বিত৷ পঞ্চ ভাই প্রেমে মত্ত ঠাকুরের ভবে। ঠাকুরের নিকটেতে আসে যায় সবে ॥ হরিনামে মাতোয়ারা নাহি অবসর । , হাতে কাম মুখে নাম কৃরে নিরন্তর। সন্ধ্যাহ’লে গৃহ কাৰ্য্য কাঁর সমাপন। সবে মিলে বসে করে নাম সংকীৰ্ত্তন ॥ ঠাকুরের আজ্ঞাবহ থাকে সৰ্ব্বক্ষণ । পঞ্চ ভাই এ ভাবে করে কালযাপন ৷ একদিন হরিচাদে আনিব বলিয়। জয়চাঁদ কহে ঠাকুরের কাছে গিল্পী ব্ৰজনাথ ওঢ়ার্কান্দি আসিল যখন। ঠাকুর বলেন মম আছে নিমন্ত্রণ ॥ কল্য নিমন্ত্রণ করে গেছে জয়চাঁদ। অদ্য মোরে নিতে আসিয়াছে ব্ৰজনাথ । ব্ৰজনাথ সঙ্গে আমি মাচকাদি যাব। কে জাইবি আয় তথা হ’বে মহোৎসব ॥ বলিতে বলিতে হরি বলিতে বলিতে । চারিশত লোক সঙ্গে হৈল অকস্মাতে ॥ ভক্ত হ’ল চারিশত হরি বলে মুখে। নাচিয়া গাইয়া যায় পরম কৌতুকে ॥ হরিনাম ধ্বনী ধেয়ে উঠিল গগণে । সবে মিলে হরি বল বলেছে বদনে ॥ প্রহরেক করে সবে নৰ্ত্তন কীৰ্ত্তন। ঠাকুর বলিল স্বান কর সর্বজন ॥ স্বান করি ভক্তসব আসিয়া বসিল। জল থা’ব বলে সব কহিতে লাগিল ॥ এক কাঠা ধান্যজাত চিড়ে আছে ঘরে । লোক দেখি চিন্তান্বিত পড়িল ফাপরে ॥ এক প্রভু আসিবেন বালা দের মন । ভকত আসিবে সঙ্গে উৰ্দ্ধ বিশজন ॥ তাহাতে হইল ভক্ত এই চারিশত। জল সেবা করিবারে সবার সম্মত ॥ الإم

s