পাতা:শ্রীশ্রীহরি লীলামৃত.djvu/২৩৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ఇరిe ~ുJoyBot (আলাপ) ১২:২৩, ৫ এপ্রিল ২০১৬ (ইউটিসি)-l~--ു . . . D শংখচূড় বেশ ধরি গিয়া নারায়ণ । ছলে করে তুলসীর সতী হু হরণ ॥ জানিমু। তুলসী শাপ দিলেন হরিরে। পাধtণ হৃদয় হরি ছলিলে আমীরে ॥ বিনাদোষে আমার সতীত্ব বিনাশিলে । নাহিক শীলতা তুমি হও গিয়ে শীলে । হরিবলে পূৰ্ব্বে তুমি মোরে কৈলে আশ । মোরে পতি পা'বে বলে করিলে তপস্বা। " কথা ছিল মনোবাং পুরা’ব তোমার । সেই ছলে পতি নাশ করিমু এবার ॥ আমি করিনাই তব সতীত্ব ভঞ্জন । বাঞ্ছা পূর্ণ করি শাপ দিলে অকারণ ॥ এক কার্য্যে দুই কাৰ্য্য হইল আমার । মোরে শাপ দিলে কেন করি অবিচার। পুরা’তে তোমার বাস্থা আসি তব ঘরে । দেবতার উপকার করিবার তরে ॥ না বুঝি শাপিল। মোরে পাষাণ হইতে । পাষাণ হইব আমি গণ্ডকী পৰ্ব্বতে ॥ অন্তথা করিতে নারী তোমার এ বাক্য । আমি শীল হইলাম তুমি হও বৃক্ষ । থাকিব তোমার মূলে তোমার ছায়ায় । ডালে ডালে মঞ্জরীতে পাতায় পাতায় ॥ শালগ্রাম রূপে ব্রাহ্মণের ঘরে রব । হেটে পিটে বক্ষে বক্ষে তোমারে রাধিব ॥ ভগবান এককাজ করিতে সাধন । বহু কৰ্ম্ম তাঁহাতে করেন সমাপন ॥ শালগ্রাম হইবেন মালার স্বত্তেতে। গজ মুণ্ড ধৱিলেন পাৰ্ব্বতী কোলেতে । মহামায়া জননীর বাছ পূর্ণ করি। থাকিল গণেশ রূপে আপনি শ্ৰীহরি ॥ ভোলানাথ ভাবিলেন আমি বা কি করি । , আমার হইল পুত্র আপনি স্ট্রইরি । অনন্ত বৃষভরূপে আমার বাহন। গরুড় রূপেতে আমি বহি নারায়ণ ॥ গণেশ রূপেতে হরি আমার নন্দন । আমি পুত্র রূপ হ’য়ে ভজিব চরণ ॥ s শিব ভাবে হরি হ’ল আমার নন্দন । হরির নন্দন হ’ব আমি অভাজন ॥ আমার বাসন পূর্ণ করিব কোথায়। পুত্ররূপে জন্ম ল’ব গিয়া নদীক্সার । শ্ৰীশ্ৰীহরিলীলামৃত। এইবার যেই লীলা করে নারায়ণ । चरृथु इ३ट् एtिभि श्रुट्टेिन नम्म ॥ . জীব উদ্ধারিতে প্ৰভু করিল প্রতিঙ্কে । তক্ত পারিষদ সব পাঠাইল আগে ॥ স্বয়ংএর অবতার হয় যেই কালে । আর অtয় অবতার তাহে এসে মিলে ॥ কেহ অগ্রে আসে কেহ পশ্চাতে আইসে । লীলা প্রভাবেতে কালে তার মধ্যে মিশে ॥ সেই মহাদেব অগ্রে এসে শান্তিপুর। ভক্তি প্রচারিল হ’য়ে অদ্বৈত ঠাকুর । কৃষ্ণভক্তি নিন্দাগুণি পাষণ্ডীর মুখে । পণ কৈল প্রভুকে আনিব মৰ্ত্ত্যলোকে ॥ ল’য়ে ফুল তুলসী করিল অঙ্গীকার । অদ্বৈত হুঙ্কারে হ’ল গৌর অবতার ॥ সেই লীলা সাঙ্গ করি ভাবে পঞ্চানন । এবার না হ’ল মম বাসন পূরণ ॥ শেষ লীলা হ’ল যশোমন্তের তনয় । অবতীর্ণ হ’ল হরি সফল ডাঙ্গায় । শিব ভাবে হেন দিন আর কবে পাব । এবার প্রতিজ্ঞ মম পূরণ করিব । বহুদিন পরে এই হ’য়েছে সময় । । এবার হইব আমি প্রভুর তনয় ॥ প্রতিজ্ঞা পূরণ করিবারে পঞ্চানন । ওঢ়াকাদি করিলেন জনম গ্রহণ ॥ জন্মিলেন শান্তি দেবী মায়ের উদরে । নিজের প্রতিজ্ঞা পূর্ণ করিবার তরে ॥ আরো কথা তার মধ্যে জীব পরিত্রাণ । স্বল্প সনাতন ধৰ্ম্ম প্রেম সুধা দান ॥ .۷بی অলৌকিক লীলারস পারিনে বণিতে। কথঞ্চিৎ বলি সেই প্রভুর কৃপাতে ॥ হরিপাল গিয়াছিল প্রভুর সদনে । সম্পত্তি বাড়িবে এই বাঞ্ছা করি মনে ॥ প্রচুর সম্পত্তি তার হ’ল অল্প দিনে । তার হ’ল গাঢ় ভক্তি প্রভুর চরণে ॥ উঠিল প্রেমের ঢেউ তাহার হৃদয় এ সকল হ’ল গুরুচাঁদের কৃপায় । যখনেতে প্ৰভু কৈল লীলা সম্বরণ। ভক্তগণ কঁদে ধরি প্রভুর চরণ ॥ ওহে প্ৰভু আমাদিগে তুমি ছেড়ে গেলে। কেমনে রাখিব প্রাণ দেহ তাহ বলে ।