পাতা:শ্রীশ্রীহরি লীলামৃত.djvu/২৫৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।


পরিশিষ্ট

 অত্ৰ শ্ৰীশ্ৰী ীিলামৃত গ্ৰন্থ মহাপ্ৰভুর লীলা কথঞ্চিৎ মাত্ৰ প্ৰকাশিত হইল। মহাপ্ৰভুৱা লীলা-গীতি প্রস্থিত করিতে, অনেকানেক, রচয়িতা, উৎসাহ সহকারে চেষ্টত আছেন। আমি বোয়ু করি, প্ৰৱ আজীবন-লীলা-কলাংশ মাত্ৰ ও এই গ্রন্থে প্ৰকাশিত হইলনা। তাহার লীলা কাহিনী বৰ্ত্তমানত: কোথায় ও লিপিবদ্ধ নাই। কিন্তু তাহার অনুসঙ্গ-ভক্ত বা প্ৰাচীনতম ব্যক্তি বা তাহাদের বংশধর গণের প্রমুখাবাহা ত হওয়া যায়; তাহ সংগ্ৰহ করিতে পাৰিলে, এইরুপ অনেকানেক গ্ৰন্থ হহ: পারে। তাহার -প্ৰেমাৰ্ণবের মহাবস্যার অনন্তঢেউ, অদাপিও “পুৰ্ব্ববঙ্গের দ্বারে দ্বারে তরঙ্গায়িত ‘’ হইতেছে।…:কতরোগী, কত পাপী, কত-অন্ধ-প্ৰভৃতি নর-নারীকে যে, জাতি বৰ্ণ নিৰ্ব্বিশেষে, তিনি এক ভক্তি পথে আনয়ন করিয়াছেন, এবং তাহার বর্তমান ভক্তগণ এখনও আনিতেছেন, তাহার ইয়ত্তা নাই। তার এক একজন ভক্তচরিত্ৰ লিপিবদ্ধ করিল, ক্ৰিয়াগুণ দ্বারা ভগবানের অবতার বলে, অনুভব করিতে হয়। গোস্বামী গোলোক, স্বামীমহানন্দ, গোস্বামীলোচন, পাগল হীরামন, পাগল ব্ৰজনাথ, প্ৰভুর ১. অনুসঙ্গরাখাল, নাটুও বিশ্বনাথ, প্ৰভৃতির ক্ৰিয়াকলাপ, অতি আশ্চৰ্য্য ও শ্ৰতি মধুর।

 গ্ৰন্থ প্রণেতা কবি-রসরাজ মহাশয়ে জীবনী মুদ্ৰাঙ্কণ বহুব্যয় সাধ্য, সুতরাং সঙ্গে দেওয়া না। আশাকরি মহাপ্ৰভুর ইচ্ছায় ভবিষ্যতে মুদ্রিত হইতে পারে।”

 পরস্তু—পাঠক এবং েশ্ৰাতৃ-মণ্ডলীর নিকট আমার, সান্ননয় িনবেদন এই; এ . রসরাজ মহাশয়, এই গ্ৰন্থ সমগ্ৰ একাদিক্ৰমে রচনা রয়াগিয়াছেন, অতপর আমি আদিষ্ট হইয়া এই গ্ৰন্থকে আদি-মধ্য - অন্ত, ও পরিশিষ্ট, এই চারিখণ্ডে বিভক্ত কনিয়াছি। এবং আদি-খণ্ডে. “সপ্ত-তরঙ্গ, মধ্য-খণ্ডে সপ্ত-তরঙ্গ, অন্ত-খণ্ডে ষষ্ঠ-তরঙ্গ এবং পরিশিষ্ট খণ্ডে তরঙ্গ-ত্ৰয় দ্বারা অত্ৰ গ্ৰন্থকে ত্ৰয়োবিংশতি, তরঙ্গে খণ্ড খণ্ড করিয়াছি। এবং যে মহাত্মার যে, যে, ক্ৰিয়া কলাপ তাহার “শীৰ্ষ-পদ” এবং “শেষপদ যাহাকে সাধারণ ভাষায় ভণিতা বলিয়া থাকে, তাং কবি-সরাজ মহাশয়ের নাম সঙ্কলিত করিয়া আমি শেষ করিয়াছি। ইহাতে যে, বাক-চাপলা এবং শ্ৰীতি-কটু-দোষ পড়িয়াছে, তাহা, এবং মৎ-কতৃক “প্ৰফ” দেখায় গ্রন্থের যে, যে, অংশ বৰ্ণাশুদ্ধি এবং ভ্ৰান্তি-মুলক যে, যে, বৰ্ণ যেখানে রহিয়াছে, তাহা আপনাদের, ক্ষমা, সহৃদয়তা, এবং বদান্যতা গুণে আমাকে মাপ করিবেন।

নিবেদক শ্ৰীহরিবর সরকার।