পাতা:শ্রীশ্রীহরি লীলামৃত.djvu/৯০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


f N حیه ای ح >মনে নাহি কোন দ্বেষ হীরামন ব’লে। মধ্য খণ্ড । b'〉 筠 জ্ঞাতি বন্ধু সব লোকে ভাবে মনে মনে। এ বেটা সংসারকার্য্য-তেয়াগিল কেনে ॥ কেহ বলে যে দিন ঠাকুর দেখতে যায়। সেই দিনে পাগল করেছে মৃত্যুঞ্জয় । মৃত্যুঞ্জয় বাটতে ঠাকুর এসেছিল । মৃত্যুঞ্জয় গৃহিণী ঠাকুরে সাজাইল । মৃত্যুঞ্জয় এনেছিল শতদল পদ্ম ॥ সেই ফুলে পূজে ঠাকুরের পাদ পদ্ম । পরম বৈষ্ণবী সেই মৃত্যুঞ্জয়মাতা। ঠাকুরে পূজিয়াছিল শুনিয়াছি কথা ॥ সে ঠাকুরে দেখিবারে গিয়াছিল হীরে । মূৰ্ছা হ’য়ে পড়েছিল দেখে সে ঠাকুরে । মৃত্যুঞ্জয় ওর কর্ণে বলে হরি বোল। সেই হ’তে হীরামনা হয়েছে পাগল । রাউৎখামার গ্রামে মেতেছে সকল। তারা সবে প্রেমে মেতে বলে হরিবোল ॥ কেহ বলে দুল্লভ মধুর হরি বোল। Tতবে কেন হীরামনা হইল পাগল ॥ সবে মিলি দেখিয়াছি ঠাকুরের রূপ। আমরা জানি যে তিনি স্বয়ং স্বরূপ ৷ * সব হরিবলা করে সংসারের কার্য্য। হীরামন কিজষ্ঠ করিল কাৰ্য্য ত্যাজ্য। কেহ ভাল কেহ মন্দ করে কণিকাণি । যাহার যেমন মন সে কহে তেমনি ॥ কেহ বলে ও-ল্লেখেছে প্রভু হরিচাদ। স্বয়ং দর্শনে হ’ল কৃষ্ণপ্রেমোন্মাদ ॥ - হীরামন কাৰ্য্যত্যাগী দেখিয়া বিশেষ। : ঠাকুরের প্রতি কারু জন্মিল বিদ্বেষ ॥ ঐচৈতন্য বালা হীরামনের সে খুড়া। ঠাকুরের প্রতি দ্বেষ করে সেই বুড়া । শ্ৰীঅক্র রচন্দ্র বালা শ্ৰীগুরুচরণ। কনিষ্ঠ শ্ৰীকোটশ্বর অতি সুলক্ষণ। ঠাকুরের প্রিয় ভক্ত তিন সহোদর। তাহার বলেন প্ৰভু স্বয়ং অবতার ॥ প্রভুর সঙ্গেতে তারা ভ্রমে সৰ্ব্বক্ষণ । প্রভুর সঙ্গেতে করে নামসংকীৰ্ত্তন ॥ ভক্তি বাধ্য মহাপ্ৰভু সেই বাড়ী যান । তাহারা বলেন ইনি স্বয়ং ভগবান। তার বলে বংশের ভাঙ্গন এই ছেলে ॥ [ x > || রত্নগৰ্ত্তে জন্মিয়াছে মহারাজ পুত্র। এ হইতে বালবিংশ হইবে পবিত্র ॥ কাৰ্য্যত্যগী হীরামন করে হরিনাম। কতদিনে দৈবযোগে হইল ব্যারাম । জর হ’য়ে ছমাস পর্য্যন্ত হ’ল ভোগ । উদরে হইল প্লীহা যকৃতাদি রোগ ॥ অদ্য মরে কল্য মরে প্রাণ ওষ্ঠাগত। সেই রোগে ক্রমে ক্রমে হ’ল মৃত্যুবত । একদিন ডেকে বলে শ্রীচৈতন্য বালা । পাগলারে ল’য়ে তোর ওঢ়ার্কাদি ফেলা ॥ রোগে মরে তবু বেটী ঔষধ না খায়। আমাদের কথা মাহি শুনে দুরাশয় ॥ আমাদের সংসারের কার্য্য নাহি করে। আমরা কেহত নয় ও কার বাড়ী মরে ॥ আসার সংসার বলে কেহ কারু নয়। যত বেটা মতুয়রা এই কথা কয়। . মতুয়াহইল-এর কি ধন পাইয়t_। বেদবিধি না মানে ফিরেছে লাফাইয়া । কেবা কার, কার কেবা, কার জন্তে কঁাদে। আত্ম স্বার্থ সমর্পণ বাবা হরিচাদে ॥ হরি বলে দিন রাতি করে সোর সোরি। বাবা যদি হরি চাদ যা’ক সেই বাড়ী। খুড়া জেঠ ভাই বন্ধু কেহ কারু নয়। দেখি ওর কোন বাবা এখনে কুলায় ॥ . . . হয় নেও ওড়ার্কাদি নয় মল্লকাদি । ও মরুক ম’তোর করুক কাদার্কাদি। . হরিদাস মৃত্যুঞ্জয় দোহে নাকি ব্রহ্ম। এ মরা বাচা’তে পারে তবে জানি-মৰ্ম্ম ॥ মর গরু বাচাইয়া জহর প্রকাশ । এই মর। বাচা’য়ে লউক হরিদাস ॥ শুনিয়া এতেক বাণী কেহ কেহ কয় । ভাল কথা বলেছ হে বালামহাশয় ॥ উহার কারণে মায়া করা নিরর্থক। গতপ্রাণী জন্যে আর করিও না শোক ॥ ডুবু তরী যদি হরিচাদ করে রক্ষা। কেমন ঠাকুর তবে বুঝিব পরীক্ষা। তিলক মণ্ডল ভূত্য সেই ডেকে বলে ॥ পাগলারে ওড়ার্কাদি অামি আসি ফেলে। এত বলি তিলক সে সাজাইল তরি । হীরামনে ল’য়ে গেল ওড়ার্কাদি বাড়ী।